ছোটবেলার পুজো। বড়বেলার পুজো। মেয়েবেলার ইচ্ছে। নায়িকার অনিচ্ছা। সব নিয়ে খোলামেলা কথা বললেন অভিনেত্রী  অরুণিমা ঘোষ। শুনলেন দেবযানী সরকার

নায়িকার পুজোর কদিন-

পুজোর কটাদিন আমি কলকাতাতেই থাকি৷ ওই চারটে দিন শুধু আমি আর আমার পরিবার৷ বাড়ি ছাড়া আর কোথাও যাই না৷ কারন, আমার ছেলে খুব চায় যে পুজোর কটাদিন ওর মা ওর সঙ্গে থাকুক৷ ওকে ভালো ভালো রান্না করে খাওয়াক৷ আমিও ওর আবদার রাখি৷ আমি বা আমার ছেলে, কেউই খুব একটা ভিড়ে ঠাকুর দেখতে পছন্দ করিনা৷ পুজোয় জাজিংয়ের সৌজন্যে আমার কিছু ঠাকুর দেখা হয়৷ ব্যস৷ ওই পর্যন্তই৷

পুজোয় খাওয়া-দাওয়া- locket

বাড়িতে জমিয়ে কটাদিন খাওয়াদাওয়া হয়৷ বাঙালী ঘরোয়া খাবারই সাধারনত হয়৷ বাইরে থেকেও খাবার আনাই৷

পুজোর শপিং-

সারাবছরই কিছু না কিছু শপিং করি বলে পুজোয় আলাদাভাবে নিজের জন্য কিছু কিনি না৷ তবে ছেলে বা আত্মীয়স্বজনদের জন্য শপিং করতে হয়৷

পুজোর স্মৃতি-

পুজো এলেই ছোটবেলার কথা খুব মনে পরে৷ আমি দক্ষিনেশ্বরের মেয়ে৷ পুজোর একটা দিন রিক্সায় চেপে বাবা-মার সঙ্গে ঠাকুর দেখতাম৷ আমার ২-৩টি বন্ধু ছিল৷ ওদের সঙ্গেই পাড়ায় মন্ডপে মন্ডপ ঠাকুর দেখতাম৷ ইন্ডাসট্রিতে আসার ২-৩ বছর পর থেকেই পুজোটা অনেক বদলে গেল৷