নয়াদিল্লি: সারা দেশে কনটেইনমেন্ট জোনগুলিতে লকডাউন৷ আনলক-৬ এর নির্দেশিকা অনুযায়ী, আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত লকডাউন জারি থাকবে৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে, কনটেইনমেন্ট জোনগুলিতে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত লকডাউন জারি থাকবে৷ তবে আগের মতোই বিভিন্ন রাজ্যের মধ্যে মানুষ ও পরিবহন চলাচল করতে পারবে৷ সে ক্ষেত্রে কোনও অনুমতি লাগবে না৷

নবান্ন সূত্রে খবর, পশ্চিমবঙ্গে বর্তমানে ৩ হাজার ৩৫২ টি কনটেইনমেন্ট জোন রয়েছে৷ এর মধ্যে শহর কলকাতায় মাত্র একটি৷ কলকাতা পুরসভার ৮নম্বর বোরোর ৬৯ ওয়ার্ডের ২২/১ বালিগঞ্জ সার্কুলার রোড ( শুধু ফাস্ট ফ্লোর)৷ যদিও এদিন একটি ভু্য়ো খবর ছড়িয়ে পড়ে যে একাধিক জেলায় নতুন করে লকডাউন জারি হচ্ছে। তবে, কলকাতা পুলিশ সেই খবর গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছে।

এছাড়া হাওড়ায় ৫৯ টি কনটেইনমেন্ট জোন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৩৩টি, উত্তর ২৪ পরগণায় ৮ টি,হুগলি ১৮ টি,নদিয়ায় ৮৭০ টি,পূর্ব মেদিনীপুর ২৭ টি,পশ্চিম মেদিনীপুর ৩৫১ টি,পূর্ব বর্ধমান ৫৬৩ টি,মালদা ৪ টি,জলপাইগুড়ি ১৪ টি,দার্জিলিং ৭ টি,কালিম্পং ২৮ টি,উত্তর দিনাজপুর ৩১৬ টি,দক্ষিণ দিনাজপুর ১১ টি,মুর্শিদাবাদ ৪৭ টি,বাঁকুড়া ৪৬ টি,বীরভূম ১২৭ টি,কোচবিহার ৩৩৫ টি,পুরুলিয়া ৪৩৮ টি,আলিপুরদুয়ার ৪৮ টি,ঝাড়গ্রাম ১ টি কনটেইনমেন্ট জোন৷

শুধুমাত্র পশ্চিম বর্ধমানে কোনও কনটেইনমেন্ট জোন নেই৷ অর্থাৎ কনটেইনমেন্ট মুক্ত জেলা৷

এদিকে বাংলায় বেড়েই চলেছে সংক্রমণ৷ বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও৷ তুলনামূলক সুস্থ হয়ে উঠছেন কম৷

কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগনার পাশাপাশি উদ্বেগ বাড়াচ্ছে আরও কয়েকটি জেলার সংক্রমণ৷ এগুলো হল -হাওড়া, দক্ষিণ ২৪ পরগণা, হুগলি,দুই মেদিনীপুর, নদিয়া ও দার্জিলিং৷

সোমবারের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, মোট আক্রান্ত যথাক্রমে কলকাতায় (৭৬,৮০৮), উত্তর ২৪ পরগনায় (৭১,৮৩১),হাওড়া (২৪,১৯৩), দক্ষিণ ২৪ পরগনায়(২৩,৩৫৯ ),হুগলি (১৭,৩৪৪), পূর্ব মেদিনীপুর ( ১৪,২৭৫) ও পশ্চিম মেদিনীপুর (১৩,৪৬৩) জন,নদিয়া ( ১১,৩৫৫) জন ও দার্জিলিং (১০,৮৭০) জন৷ বাকি জেলায় সংক্রমণ ১০ হাজারের নিচে৷

রাজ্যে একদিনে আক্রান্ত ৪,১২১ জন৷ মোট আক্রান্ত সাড়ে ৩ লক্ষ ৫৩ হাজার ৮২২ জন৷ ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে ৫৯ জনের মৃত্যু হয়েছে ৷ এই পর্যন্ত রাজ্যে মোট মৃতের সংখ্যাটা ৬,৫৪৬ জন৷

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা বাড়তে বাড়তে ৩৭ হাজার ছাড়াল৷ এদিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী,৩৭ হাজার ১৯০ জন৷ এদিনও নতুন আক্রান্তের তুলনায় সুস্থ হয়ে উঠার সংখ্যাটা কম৷ একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩,৮৮৯ জন৷এই পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লক্ষ ১০ হাজার ৮৬ জন৷ সুস্থতার হার একটু বেড়ে ৮৭.৬৪ শতাংশ৷

একদিনে যে ৫৯ জনের মৃত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে কলকাতার ১৪ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ১৫ জন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৮ জন৷ হাওড়ার ৫ জন৷ হুগলি ১ জন৷ পূর্ব বর্ধমান ১ জন৷ পূর্ব মেদিনীপুর ২ জন৷ পশ্চিম মেদিনীপুর ৬ জন৷ নদিয়া ২ জন৷ কালিম্পং ১ জন৷ দার্জিলিং ৩ জন৷ আলিপুরদুয়ার ১ জন৷

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।