রায়গঞ্জঃ ক্রমশ বাড়ছে সংক্রমণ। মারণ করোনা সংক্রমণের হাত থেকে রায়গঞ্জের মানুষকে বাঁচাতে বুধবার থেকে চারদিনের জন্য লকডাউন শুরু হয়েছে। কিন্তু সরকারি নির্দেশের তোয়াক্কা না করেই এদিন রায়গঞ্জের পুরোনো ছবিটাই ধরা পড়েছে গোটা শহর জুড়ে৷

এদিন বিভিন্ন জায়গায় দোকান, বাজার খোলার পাশাপাশি রাস্তায় অপ্রয়োজনীয় ভাবে ঘোরাফেরা করেছেন অসংখ্য যুবক থেকে সাধারণ মানুষদের। স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই বাজারে জটলাও করেছেন তাঁরা। যদিও বৃহস্পতিবার বেলা বাড়তেই মহকুমা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও পুর প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন জায়গায় হানা দিয়ে দোকান বাজার বন্ধ করে দেওয়া হয়। আগামীকাল শুক্রবার থেকে আইনানুগ ভাবে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান প্রশাসনিক কর্তারা।

রায়গঞ্জ পুরসভার চেয়ারম্যান সন্দীপ বিশ্বাস জানান, “গতকালই রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে অন্যান্য শহরগুলোর পাশাপাশি রায়গঞ্জ শহরাঞ্চলেও লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। আজ পথে যারা অপ্রয়োজনীয় ভাবে বের হচ্ছেন তাদের কাছে হাতজোড় করে লকডাউনকে মান্যতা দিয়ে ঘরে থাকতে বলা হচ্ছে। এরপরেও কেউ যদি কথা না শোনেন, পুলিশ প্রশাসন তাঁর প্রতি আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এবং পুরসভা প্রশাসনকে সহযোগিতা করবে”।

অন্যদিকে রায়গঞ্জ মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশন সাধারণ সম্পাদক অতনু বন্ধু লাহিড়ী জানান, “গতকাল অনেকরাতে লকডাউনের নোটিশ আসার কারনে বেশিরভাগ ব্যবসায়ীদের কাছে সেই নোটিশ পৌঁছায়নি। আমরাও প্রশাসনের কাছে সামান্য সময় চেয়েছিলাম ব্যবসায়ীদের কাছে গোটা ব্যাপারটা বোঝানোর জন্য৷

কাল থেকে আশা করি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য বাদে বাকি সব দোকান বন্ধ থাকবে। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করবো শুধুমাত্র দোকান বন্ধ করলেই হবেনা। এর সাথে গণপরিবহন বন্ধ রাখা দরকার। এর সাথে বাজারগুলিরও সময় নির্ধারণ করার প্রয়োজন আছে তবেই প্রকৃত লকডাউনের সুফল পাওয়া যাবে”।

প্রসঙ্গত, রাজ্যে বাড়ছে সংক্রমণ। তাই নতুন করে লকডাউনের ঘোষণা করা হয়েছে। কলকাতা ও তার পাশ্ববর্তী জেলাগুলি নিয়ে তো ভয় রয়েছেই। পাশাপাশি, আতঙ্ক বাড়ছে উত্তরবঙ্গ জুড়ে। মঙ্গলবারের ঘোষণা অনুযায়ী, এই পরিস্থিতিতে রাজ্যে কনটেনমেন্ট জোনে ৩ দিন বেড়েছে লকডাউনের মেয়াদ। ১৬ তারিখের বদলে লকডাউন জারি থাকবে ১৯ জুলাই পর্যন্ত।

এর পাশাপাশি বুধবার থেকে থেকে উত্তরবঙ্গের ৫টি জেলায়, শহরভিত্তিক লকডাউন শুরু হচ্ছে। লকডাউন কার্যকর হবে জলপাইগুড়ি, মালদা, কোচবিহার, উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ এবং দার্জিলিংয়ের শিলিগুড়িতে। এই জায়গাগুলিতেও ১৯ জুলাই পর্যন্ত জারি থাকবে লকডাউন। এক বিজ্ঞপ্তিতে এমনটাই জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

কিন্তু এদিন সকাল থেকে রায়গঞ্জে যে ছবি দেখা গিয়েছে তাতে পরিষ্কার কেউ লকডাউন মানছে না। তবে সাধারণ মানুষকে ঘরবন্দি করতে আইনের পথেই হাঁটতে চলেছে প্রশাসন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ