স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: চলতি মাসেই মারণ এই ভাইরাস করোনাকে বিশ্বব্যাপী মহামারী হিসেবে ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’। তারপরেও টনক নড়েনি এক শ্রেণীর মানুষের মধ্যো। ফলে দেশজুড়ে অতিসতর্কতা কেউ মানছেন, কেউ আবার মানছেন না।

এমন পরিস্থিতিতে মারণ ভাইরাস ‘করোনার’ সংক্রমণ রোধে দেশজুড়ে লকডাউন চলছে। তবুও এরমধ্যো ওষুধ সহ অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান বাজার খোলা রয়েছে। ফলে অতিমারি ঠেকাতে কোথাও বাড়ছে সচেতনতা, আবার কোথাও একই অবস্থা। বাজারে ‘সামাজিক দূরত্বে’র কথা বলা হলেও সর্বত্র তা মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগও উঠছে বিস্তর ।

তেমনই রবিবার সকালে বাঁকুড়া শহরের লালবাজার এলাকার দত্তের বাঁধ সব্জী বাজারে গিয়ে দেখা গেল, ‘সামাজিক দূরত্ব’ বজায় না রেখেই এক সঙ্গে অনেক মানুষ বাজার করছেন। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনের নজরে আসায় সোমবার থেকে প্রাত্যহিক এই বাজার শহরের হিন্দু স্কুল মাঠে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এই বিষয়ে ব্যবসায়ী সুধাংশু তন্তুবায় আত্মপক্ষ সমর্থণের সুরে বলেন, আমি তো দূরেই আছি। মানুষ ভিড় করছে। একই সঙ্গে হিন্দু স্কুল মাঠে বাজার স্থানান্তকরণকেও তিনি সমর্থন জানিয়েছেন। স্থানীয় বাসিন্দা সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ও প্রশাসনের এহেন সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এই বাজারে কোনও মতেই ‘সামাজিক দূরত্ব’ তৈরি করা যাচ্ছিল না। হিন্দু স্কুল মাঠে বাজার স্থানান্তরিত হলে সেই সমস্যা অনেকটা মিটবে বলে তিনি জানান।

কিন্তু শহরের বাজারের ছবিটা পুরো উলটো৷ ভীরের মধ্যে গাদাগাদি করে বাজার করছে সো-কলড শিক্ষিত মানুষরা৷ সামাজিক সচেতনাকে কেয়ার না-করে করোনা নামক এই মারণ ভাইরাস আমন্ত্রণ জানাচ্ছে তারা৷