প্যারিস ও বার্লিন: বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে এক মাসের জন্য ফের লকডাউন ফ্রান্সে। পাশাপাশি একই কারণে আগামী কয়েকদিন কড়াকরি জারি করছে জার্মানি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে এমন ব্যবস্থা ইউরোপের দুই দেশে।ইমানুয়েল ম্যাকরন এবং অ্যাঞ্জেলা মার্কেল ইতিমধ্যেই দুজনে জানিয়েছেন লকডাউনের এই পর্বে জরুরী পরিষেবা ছাড়া আর সব কিছুই বন্ধ রাখা হবে।

শীত আসার মুখের গোটা বিশ্বে করোনা ভ্যাকসিন আসতে পারে বলে বিভিন্ন মহলে ইঙ্গিত মিলেছে। তবে আবার এই শীতেই করোনা ব্যাপক হারে মাথাচাড়া দিতে পারে বলে আশঙ্কা দানা বাঁধছে। এই পরিস্থিতিতে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে দেখা গেল ফ্রান্স-জার্মানিকে।

জনগণের উদ্দেশ্যে ভাষণে ফরাসি প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, আগে আশঙ্কা করা যায়নি এমন গতিতে নানা প্রান্তে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়বে । কোন প্রতিবেশী রাষ্ট্রের মত ফ্রান্সেও ব্যাপক আকারে ছড়িয়েছে করোনা। তাই প্রথম দফার থেকে এবারের দ্বিতীয় দফায় মোকাবেলা করাটা আরো কঠিন বলে মনে করছেন তিনি। বন্ধ রাখা হচ্ছে পানশালা সিনেমা রেস্তোরাঁ। অনুরোধ জানানো হয়েছে একান্ত দরকার না হলে বাড়ি থেকে কাজ করার জন্য।

অন্যদিকে জার্মানিতে ২ নভেম্বর থেকে সবকিছু দরজা বন্ধ করা হচ্ছে। অ্যাঞ্জেলা মার্কেল জানিয়েছেন, স্কুল খোলা থাকলে অন্যান্য প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে। জরুরী পরিষেবা দেওয়ার জন্য কিছু দোকান খোলা থাকলেও সেখানে প্রবেশ নিয়ন্ত্রিত করা হবে। কোনভাবেই ভিড় না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তাঁর মতে সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে তা ক্রমশ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে বলেই এমন ব্যবস্থা নিতে হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।