লন্ডন: করোনার সংক্রমণ কমার লক্ষ্মণ নেই। বরং দিনে-দিনে সংক্রমণের গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী। দেশের সাম্প্রতিক সংক্রমণ পরিস্থিতি পর্যালোচনার পর কঠিন সিদ্ধান্তটা নিয়েই ফেললেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। একটানা এক মাসের জন্য গোটা দেশে লকডাউন ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। সংক্রমণে লাগাম পরাতে এই মুহূর্তে লকডাউন ছাড়া বিকল্প কোনও পথ খোলা নেই বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

বেড়েই চলেছে সংক্রমণ। করোনা মোকাবিলায় গত কয়েকমাসে একাধিক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললেও সংক্রমণের গ্রাফ ঊর্ধমুখী। পরিস্থিতি পর্যালোচনায় এবার একটানা এক মাসের জন্য গোটা ব্রিটেনে লকডাউন ঘোষণা করে দিলেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

আগামী সোমবার থেকে শুরু হয়ে ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশে লকডাউন চলবে বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে তাঁর আশা, ক্রিসমাসের আগে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হবে। সেটা হলে সব বিধি-নিষেধও শিথিল করা হবে।

ব্রিটেনের করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক আকার নিয়েছে। শনিবার রাত পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডোমিটারের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ব্রিটেনে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১০ লক্ষ ১১ হাজার ৬৬০।

দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬ হাজার ৫৫৫। দেশের লাগামছাড়া সংক্রমণে বেড়ি পরাতে লকডাউন ছাড়া বিকল্প কোনও পথ নেই বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশের করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজজনক আকার নিয়েছে।

ইতিমধ্যে দেশে জরুরি অবস্থা জারি করেছে স্পেন। করোনার দ্বিতীয় কামড়ে বেসামাল হয়ে পড়তে পারে গোটা ইউরোপ। সেই আশঙ্কা করেই এবার লকডাউনের সিদ্ধান্ত ব্রিটিশ সরকারের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I