প্রতীকী ছবি৷

বিশেষ প্রতিবেদনঃ  লকডাউনে একের পরে এক মৃত্যুর সাক্ষী থেকেছে বিনোদন জগৎ। ঘরবন্দি অবস্থায় রোজ একটি করে মৃত্যুর খবর শোকস্তব্ধ করে যাচ্ছে মানুষকে। দেখে নেওয়া যাক বলিউডে ছোট পর্দা থেকে বড় পর্দা বিনোদন জগতের কোন কোন শিল্পী এই সময়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন।

ইরফান খান- বলিউড প্রেমীদের কাছে প্রথম ধাক্কা অভিনেতা ইরফান খানের মৃত্যু। ২৮ এপ্রিল আচমকা শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে মুম্বইয়ের কোকিলাবেন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

তার পরের দিন অর্থাৎ ২৯ এপ্রিল সকালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন তিনি। ক্যান্সারে আক্রান্ত ইরফানের চিকিৎসা চলছিল বিদেশে।

ঋষি কাপুর– ইরফান খানের মৃত্যুর শোক কাটিয়ে ওঠার আগেই বলিউডে আর এক ইন্দ্রপতন হয়। ২৯ এপ্রিলই হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ঋষি কাপুরকে।

পরের দিন অর্থাৎ ৩০ এপ্রিল সকাল ৮টা ৪৫ মিনিট নাগাদ মৃত্যু হয় তাঁর। দুবছর ধরে ক্যানসারের সঙ্গে লড়ছিলেন তিনি। ২০১৮-য় নিউইয়র্ক চলে যান চিকিৎসার জন্য। সেখানে এক বছর ছিলেন। এক বছর থেকে ২০১৯-এ ফিরে আসেন।

মনমীত গ্রেওয়াল- ঋণে জর্জরিত হয়ে এই টেলি অভিনেতা আত্মঘাতী হন। নভি মুম্বইয়ে নিজের বাড়িতেই গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হন তিনি। ঋণের দায়ে খুব চাপের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলেন। আর লকডাউনের জেরে কোন কাজও পাচ্ছিলেন না তিনি। ‌অভিনেতার স্ত্রী তাকে প্রথম ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেন।

তিনি মনমীতকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর অভিনেতাকে বাঁচানো যায়নি। জানা যাচ্ছে প্রতিবেশীদের থেকেও সাহায্য চেয়েছিলেন মনমীতের স্ত্রী। কিন্তু তাঁরা ভেবেছিলেন মনমীত হয়তো করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত।

আর তাই কোনো সাহায্যের হাত এগিয়ে আসেনি প্রতিবেশীদের তরফ থেকে। আদত সে মজবুর এবং কুলদীপক টিভি শো-তে অভিনয় করতেন মনমীত গ্রেওয়াল।

মোহিত ভগেল- ২৩ মে মৃত্যু হয় বলিউডের কৌতুক অভিনেতা মোহিত ভগেলের। জানা যায় তিনি বহুদিন ধরে ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করছিলেন। বলিউডের বেশ কিছু ছবিতে তিনি কৌতুক অভিনেতা হিসেবে কাজ করেছেন। সলমন খানের সঙ্গে রেডি ছবিতে অভিনয় করেছিলেন তিনি। মোহিতের মৃত্যুর খবর শুনে ভেঙে পড়েছিলেন সলমনও।

প্রেক্ষা মেহতা- লকডাউনের মধ্যেই সিলিং ফ্যান থেকে ঝুলে আত্মহত্য়া করেছিলেন ২৫ বছরের অভিনেত্রী প্রেক্ষা মেহতা। আত্মঘাতী হওয়ার আগে ইনস্টাগ্রামে শেষ পোস্টে লিখেছিলেন, ‘সবথেকেখারাপ হয়, যখন স্বপ্নগুলো মরে যায়।’ জানা যায় তিনি অবসাদে ভুগছিলেন। তাঁর বাড়ি থেকে একটি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করে পুলিশ।

সুইসাইড নোটে প্রেক্ষা লিখেছিলেন, তিনি জীবনে পজিটিভ থাকার প্রবল চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি পারেননি সেটা করতে। ক্রাইম পেট্রোলে অভিনয় করেই পরিচিত হন প্রেক্ষা মেহতা। এছাড়াও একাধিক টিভি শো-তে অংশ নিয়েছেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর হাসি-খুশি ছবিতে ভরা। কিন্তু তার আড়ালে যে এভাবে ভেঙে পড়ে ছিলেন তিনি, তা বুঝতে পারেননি কেউ। ‘মেরি দুর্গা’, ‘লাল ইস্ক’-এর মত শো-তেও অভিনয় করেছেন তিনি।

ওয়াজিদ খান- ১ জুন মৃত্যু হয় বলিউডের সঙ্গীত পরিচালক জুটি সাজিদ-ওয়াজিদের ওয়াজিদ খানের। বেশ কিছুদিন ধরেই তিনি অসুস্থ ছিলেন। অবশেষে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। সেখানেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। সলমনের ছবি দাবাং ৩-এর মিউজিক লঞ্চে শেষ দেখা গিয়েছিল তাঁকে।

সাজিদ ওয়াজিদ বলিউডে দাবাং ৩, দাওয়াতে ইশক, জুড়ুয়া ২, তেভর, সত্যমেভ জয়তে, হিরোপন্তি, ম্যায় তেরা হিরো, জয় হো, বুলেট রাজা, এক থা টাইগার, তেরি মেরি কাহানির মতো ছবিতে সঙ্গীত পরিচালনা করেছিলেন।

সুশান্ত সিং রাজপুত- বলিউডের কাছে সবচেয়ে বড় ধাক্কা অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু। ১৪ জুন দুপুরে বান্দ্রার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয় সুশান্তের ঝুলন্ত দেহ। মুম্বই পুলিশ তদন্ত শুরু করার আগেই জানিয়ে দেয় তিনি আত্মঘাতী হয়েছেন এবং বহুদিন ধরে অবসাদে ভুগছিলেন। যদিও এই খবর মানতে রাজি হননি সুশান্তের অনুরাগীরা। তাঁরা সোশ্যাল মিডিয়ায় সিবিআই তদন্তের দাবিতে সরব হন।

অবশেষে দেড় মাস পরে সুশান্তের বাবাও পটনার রাজীব নগর থানায় সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগ রিয়া সুশান্তকে আত্মহত্যার প্ররোচনা দিয়েছেন, প্রতারণা করেছেন, টাকার নয়ছয় করেছেন এবং ওষুধের ওভারডোজ দিয়ে অসুস্থ করেছেন। এর পরে বিহার পুলিশও তদন্তে নামে। বুধবার সুশান্তের মামলার তদন্ত তুলে দেওয়া হয় সিবিআই-এর হাতে।

সমীর শর্মা- ৫ অগাস্ট ইয়ে রিশতা কেয়া কেহলাতা হ্যায় খ্যাত অভিনেতা সমীর শর্মার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে মুম্বইয়ের মালাড পুলিশ। মালাডে ৪৪ বছর অভিনেতার বাড়ি থেকেই উদ্ধার করা হয় তাঁর দেহ। বাড়ির রান্নাঘরে তাঁকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

মালাড পুলিশ জানিয়েছে, মালাডের এই ফ্ল্যাট তিনি ফেব্রুয়ারিতে ভাঁড়া নিয়েছিলেন। বুধবার রাতে একজন কর্মরত ওয়াচম্যান প্রথমে সমীরের ঝুলন্ত দেহ প্রথম দেখতে পান।

সঙ্গে সঙ্গে আবাসনের অন্যদের তিনি জানান।মালাড পুলিশ দাবি করেছে আত্মঘাতী হয়েছেন সমীর। তাঁর দেহ দেখে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান যে দুদিন আগেই তিনি আত্মঘাতী হয়েছেন। তবে কোনও সুইসাইড নোট পাওয়া যায়নি।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও