কলকাতা : ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ কামড় বসিয়েছে কলকাতা সহ দুই ২৪ পরগণায়। আর তার জেরে কাঁপছে বাংলা। একনাগাড়ে বৃষ্টির দাপটে বিপর্যস্ত জনজীবন। বিকেলের পরেই জানা যায় সন্ধ্যে ৬ টা থেকে বাতিল করা হয়েছে কলকাতার বিমান পরিষেবা। এরই মধ্যে খবর, ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে বাতিল করা হয়েছে বেশ কয়েকটি ট্রেনও।

জানা গিয়েছে বাতিল করা হয়েছে দীঘাগামী বেশ কয়েকটি ট্রেন। বাতিল হওয়া ট্রেনের মধ্যে রয়েছে পাশকুড়া-দীঘা লোকাল (৬৮৬৮৭), হাওড়া-পাশকুড়া-দীঘা (৩৮৪৩৯), দীঘা-পাশকুড়া (৬৮৬৮৬), দীঘা-পাশকুড়া-হাওড়া লোকাল (৬৮৬৮৮/৩৮৪১৮)।

জানা গিয়েছে, এই মুহুর্তে উপকূল থেকে মাত্র কয়েক কিমি দূরে রয়েছে বুলবুল। ইতিমধ্যেই পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, উত্তর ও দক্ষিণ দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া সহ কলকাতায় ভারী বর্ষণ শুরু হয়েছে। আর অল্প কিছু সময়ের মধ্যেই উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে বুলবুল।

সাগরদ্বীপে আছড়ে পড়বে এই ঝড়। প্রভাব পড়বে দীঘা, মন্দারমনি, বকখালি সহ দক্ষিণবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকায়। ইতিমধ্যে বিপর্যয় রুখতে প্রস্তুত রয়েছে কমব্যাট ফোর্স। তৈরি রয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরও। জানা গিয়েছে, গঙ্গাবক্ষে প্রশাসনের তরফে ইতিমধ্যেই মাইকিং করা শুরু হয়েছে। ছোট নৌকা নদী পারাপার নিয়ে ব্যাপক কড়াকড়ি জারি হয়েছে। লঞ্চ, ফেরি সার্ভিস ইতিমধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এমনিতেই আয়লা আতঙ্ক এখনও মনে রয়েছে সুন্দরবনবাসীর। এরই মধ্যে ফের বুলবুল-এর দাপটে কতটা ক্ষতি হয়, তা নিয়ে আশঙ্কায় রয়েছেন তাঁরা। কলকাতায় ঘন্টায় ৬০-৭০ কিলোমিটার বেগে এই ঝড় কলকাতার উপর দিয়ে বয়ে যাবে। ফলে গাছ ভেঙে পড়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে শহরে। শুধু তাই নয়, বহু পুরানো বাড়িও রয়েছে। তা নিয়েও বেশ চিন্তিত পুরসভা।

যদিও পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত রাজ্য সরকার। ইতিমধ্যে নবান্নে খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। জানা যাচ্ছে, পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে ইতিমধ্যে নবান্নে পৌঁছে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু কন্ট্রোল রুমে বসে থাকা নয়, ইতিমধ্যে রাজ্যবাসীকে বার্তাও দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি তাঁর সোশ্যাল মিডিয়াতে রাজ্যবাসীকে সতর্ক করে লিখেছেন, কোনওভাবে আতঙ্কিত হবেন না। শান্ত থাকুন এবং নিরাপদে থাকুন।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।