স্টাফ রিপোর্টার, সিউড়ি: সমস্যাটা হল গোঁড়ায় গলদ৷ বুধবার বোলপুর গীতাঞ্জলী প্রেক্ষাগৃহে প্রশাসনিক বৈঠকে বালি খাদানে নজরদারি চালানো প্রসঙ্গে এমনই মন্তব্য করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ জমি এবং বালি খাদানগুলি নিয়ে এদিন সরব হন তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী জানতে চান সেগুলো কি অবস্থায় রয়েছে? জেলাশাসক মৌমিতা গদারা বসু বলেন, ‘আমরা ই চালান শুরু করতে চলেছি খুব তাড়াতাড়ি৷ যাতে করে ডুবলিকেট চালান ব্যবহার করতে না পারে গাড়ি চালকরা৷ এছাড়াও ড্রোন ক্যামেরা দিয়ে পুলিশ আধিকারিক সহ ভূমি আধিকারিকরা ও বিভিন্ন বালি খাদানে নজর রাখছি৷ এছাড়াও যে সমস্ত বালি খাদানগুলিতে সিসিটিভির আওতায় আনা হয়েছে৷ সেই সিসিটিভিগুলির ফিল্ড বিএলআরও এবং থানার সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে৷’

এরপরই মুখ্যমন্ত্রী বলেন সমস্যা হল গোঁড়ায় গলদ৷ কোথাও কোথাও বিএলআরও এবং লোকাল থানা জড়িত থাকে বলে এটা হয়৷ যেখানে লোকাল পুলিশ স্টেশন এবং বিএলআরও জড়িত থাকে না৷ সেখানে এই ধরনের ঘটনা ঘটে না৷ সুতরাং তাদেরকে শেয়ার করিয়ে দেওয়া মানে তারা এটিকে আরও অপব্যবহার করবে৷ এই জিনিসগুলো করবেন না৷ এটাকে টেক কেয়ার করুন৷

তাঁর কথায়, ‘‘যত অভিযোগ জমি নিয়ে৷ বারবার আমরা এটা নিয়ে বসেছি৷ যার জন্য জমি মিউটেশন আমরা পুরো অনলাইনে করে দিয়েছি৷’ পাশাপাশি এদিন তিনি নানুরের ওসির কাছে জানতে চান নানুর আইন পরিস্থিতি কি আছে ? ওখানে আর বোমা তৈরি হচ্ছে না তো৷ যত আগ্নেয়াস্ত্র আছে সমস্ত রিকভারি করবেন৷ বালি থেকে পথ দুর্ঘটনা, আবাসন থেকে স্বাস্থ্য সমস্ত দিক নিয়ে এদিন প্রশাসনকে কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷