নয়াদিল্লি: উপত্যকার স্থানীয় যুবকদের একাংশকে দলে টানছে জঙ্গি সংগঠনগুলি। টাকার প্রলোভন-সহ ধর্মীয় উসকানি দিয়ে বহু যুবককে নিজেদের সংগঠনে যুক্ত করতে তৎপর হয়েছে জঙ্গি নেতারা। এভাবে গত কয়েকমাসে প্রায় একশো যুবক উপত্যকার একাধিক জঙ্গি শিবিরে নাম লিখিয়েছে বলে বলে জেনেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। এই খবর কানে যেতেই নড়েচড়ে বসেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কর্তারা।

বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের পর থেকেই গোটা উপত্যকাকে নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলে কেন্দ্রীয় সরকার। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে উন্নয়নের জোয়ার আনা হবে ভূস্বর্গে, এমনই দাবি কেন্দ্রের।

কিন্তু স্থানীয়দের একটি অংশ কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলে অখুশি। সম্প্রতি চাঞ্চল্যকর একটি তথ্য পেয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। গত কয়েকমাসে জম্মু-কাশ্মীরের প্রায় একশো যুবক বিভিন্ন জঙ্গি শিবিরে নাম লিখিয়েছে বলে জানতে পেরেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

জানা গিয়েছে, গত কয়েকমাসে জম্মু-কাশ্মীরের বিভিন্ন এলাকায় সেনা-পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে যত জঙ্গি নিহত হয়েছে, তাদের অধিকাংশই স্থানীয় বাসিন্দা। স্বাভাবিকভাবেই এই তথ্য পেয়ে এবার নতুন করে উদ্বেগ বেড়েছে কেন্দ্রের।

ইতিমধ্যেই স্থানীয় যুবকদের সমাজের মূল স্রোতে কীভাবে ফেরানো যায়, তা নিয়েই নতুন করে পরিকল্পনা সাজানোর তোড়জোড় শুরু হয়েছে। একইসঙ্গে যে পরিবারগুলি থেকে যুবকরা গিয়েছে, তাদের চিহ্নিত করার পরিকল্পনাও নিয়েছে প্রশাসন।

জানা গিয়েছে, স্থানীয় যুবকদের অনেককে টাকার লোভ দেখিয়ে দলে টানছে জঙ্গি নেতারা। কাউকে আবার ধর্মীয় উসকানি দিয়ে দলে টানা হচ্ছে।

স্থানীয়দের দলে নিলে সেক্ষেত্রে এলাকা বোঝা ও সেনা-পুলিশ সম্পর্কে বাড়তি তথ্য মিলতে পারে বলে মনে করে জঙ্গি নেতারা। সেই কারণেই সীমান্তের ওপারের পাশাপাশি কাশ্মীরের স্থানীয় যুবকদের দলে টানতে সমানভাবে উৎসাহী বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠন।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।