কলকাতাঃ বিপর্যয়ের ৪৮ ঘন্টা কেটে গিয়েছে। কিন্তু অন্ধকারে ডুবে রাজ্যের বহু এলাকা। এমনকি, বৃহত্তর কলকাতারও কিছু কিছু অংশে নেই ইন্টারনেট, বিদ্যুৎ। সুপার সাইক্লোনের ৪৮ ঘন্টা কেটে যাওয়ার পরেও বিদ্যুৎ না থাকার কারণে ক্রমশ ক্ষোভ বাড়ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। শহরের বিভিন্ন জায়গা থেকে আজ শুক্রবার দফায় দফায় বিক্ষোভ, অশান্তির খবর এসেছে। সাধারণ মানুষের একটাই অভিযোগ, ৪৮ ঘন্টা কেটে গেলেও এখনও বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছি।

শুধু শহরেই নয়, জেলাতেও ক্রমশ ক্ষোভ বাড়ছে। কারণ এখনও পর্যন্ত বহু এলাকা অন্ধকার। কোথাও খুঁটি উপড়ে গিয়েছে তো কোথাও আবার ট্রান্সফরমার ভেঙে পড়ে গিয়েছে। এই অবস্থায় সাধারণ মানুষের ক্ষোভ সামলাতে গিয়ে বিক্ষোভের মধ্যে পড়তে হচ্ছে প্রশাসনিক কর্তাদের।

সূত্রের খবর, এই অবস্থায় এদিন তড়িঘড়ি বৈঠকে বসেন বিদ্যুৎ মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। প্রশাসনিক দফতরের তরফে দফায় দফায় বৈঠক হয়। এরপর সিইএসএসি আধিকারিকদের সঙ্গেও তাঁর বৈঠক হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। দ্রুত পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সব জায়গায় যেভাবে গাছ পড়ে রয়েছে তাতে এই মুহূর্তে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়া নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি রয়েছে।

সিইএসসি তাঁদের সোশ্যাল মিডিয়াতে জানিয়েছে, রাস্তায় তাদের কর্মীরা দিন-রাত একসঙ্গে কাজ করছেন। পরিস্থিতি খুব শীঘ্রই ঠিক হয়ে যাবে বলে জানিয়েছে সংস্থা। যদিও সূত্রের খবর, এত গাছ পড়েছে ঝড়ের কারণে তা সরিয়ে বিদ্যুৎ ফেরানোটাই এখন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে কর্মীদের কাছে। অনেক জায়গাতে গাছের পাশেই সমস্ত ইলেকট্রিকের বক্স রয়েছে শহরে। কিংবা আছে ট্রান্সফর্মার।

বিধংসী ঝড়ে গাছগুলি যখন উপড়ে পড়েছে অনেক ক্ষেত্রেই সেগুলি নিয়ে ভেঙে পড়েছে। আবার অনেক ক্ষেত্রেই বিদ্যুৎের তারগুলি গাছের সঙ্গে ছিঁড়ে পড়েছে। ফলে গাছ সরানোটা সবার আগে প্রয়োজন বলে মনে করছেন প্রশাসনিক আধিকারিকরা।

তবে বড় রাস্তা তো বটেই, অলিতে-গলিতে এত গাছ ভেঙে পড়েছে তা সরানোটাই বড় চ্যালেঞ্জ। অন্যদিকে বিভিন্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, রাজ্যের প্রায় ৬০% সাবস্টেশনই ক্ষতিগ্রস্ত। ৫ জেলায় বিদ্যুৎ পরিষেবা পুরোপুরি বিপর্যস্ত। কলকাতা, দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া ও হুগলিতে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ পরিষেবা। বিদ্যুৎ পরিষেবা বিপর্যস্ত দুই মেদিনীপুর, মালদহ, নদিয়াতেও।

যদিও পরিস্থিতি যাতে দ্রুত স্বাভাবিক করা যায় সেজন্যে দ্রুত চেষ্টা চালানো হচ্ছে। কয়েক হাজার কর্মী এই মুহূর্তে কাজ করছে। তাও সম্পূর্ণ ভাবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে দু-তিন লেগে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV