ফাঁকায় বল পেয়েও উড়িয়ে মারছেন সালাহ৷

লিভারপুর: গতবারের চ্যাম্পিয়নদের বেহাল দশা৷ টানা ব্যর্থতার পর দু’টি অ্যাওয়ে ম্যাচ জিতে ট্র্যাকে ফিরেছিল লিভারপুল৷ কিন্তু বুধবার ঘরের মাঠে প্রিমিয়র লিগের পয়েন্ট টেবলে তলার দিকে থাকা ব্রাইটনের কাছে হেরে ২২ ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে নেমে ‘দ্য রেডস’৷ আর বার্নালিকে হারিয়ে সাত পয়েন্টে এগিয়ে থেকে লিগে শীর্ষস্থান ধরে রাখল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি৷

বুধবার রাতে অ্যানফিল্ডে ব্রাইটনের কাছে ১-০ হারে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। গত নভেম্বরে লিভারপুলকে ঘরের মাঠে ১-১ গোলে আটকে দিয়েছিল ব্রাইটন। এবার গতবারের চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে বড় ধাক্কা দিল লিগের তলা থাকা দলটি৷

গতবারের চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলের এবারের প্রিমিয়র লিগে যাত্রা মোটেই ঠিক হয়নি৷ ২১ জানুয়ারি বার্নলির কাছে ১-০ গোলে হেরে ঘরের মাঠে টানা ৬৮ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ড ভেঙে ছিল ‘দ্য রেডস’-এর৷ ২১ জানুয়ারি তারা সেই সঙ্গে আট বছর পর লিগে এই প্রথমবার ঘরের মাঠে টানা দু’টি ম্যাচ হারল লিভারপুল। ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে সবশেষ তারা টানা হেরেছিল আর্সেনাল ও ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের কাছে।

ব্রাইটনে তৃতীয় মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত লিভারপুল। হেন্ডারসনের পাস প্রথম ছোঁয়ায় ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণে নিলেও গোল করার মতো পজিশন থেকে উড়িয়ে মেরে হতাশ করেন মহম্মদ সালাহ। প্রথমার্ধের বাকি সময়ে বড় আক্রমণ করতে পারেনি ঘরের মাঠে আগের দুই লিগ ম্যাচেও গোলের দেখা না-পাওয়া লিভারপুল। প্রথমার্ধে ব্রাইটনের ফুটবলাররাও লক্ষ্যে কোনও শট নিতে পারেনি৷

কিন্তু বিরতির কিছুক্ষণের মধ্যেই ব্রাইটনকে এগিয়ে দেন স্টিভেন৷ ৫৬ মিনিটে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করে ব্রাইটনের ইংলিশ ফরোয়ার্ড। বাঁ-দিক থেকে সতীর্থের হেডে বাড়ানো বল ডান দিকের পোস্টে করেন স্টিভেন। ম্যাচে কোনও দলই আর লক্ষ্যে শট মারতে পারেনি৷ এর ফলে ঘরের মাঠে এই নিয়ে টানা তিন ম্যাচ কোনও গোল পেল না লিভারপুল। এ নিয়ে ২২ ম্যাচে ষষ্ঠ হারের স্বাদ পেল গতবারের চ্যাম্পিয়নরা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.