লিভারপুর: প্রথম ম্যাচে নরউইচ সিটিকে ৪-১ হারিয়ে প্রিমিয়র লিগ শুরু করেছিল লিভারপুল৷ শনিবার সাউদাম্পটনকে ২-১ হারিয়ে লিগ টেবলে শীর্ষস্থান ধরে রাখল ‘দ্য রেডস’৷ সেই সঙ্গে লিগে টানা ১১ ম্যাচ জিতে রেকর্ড গড়ল লিভারপুল৷ আর এদিন বার্নলিকে ২-১ গোলে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়ে লিগ টেবলে দ্বিতীয় স্থান রয়েছে আর্সেনাল।

এদিন অ্যাওয়ে ম্যাচে সাদিও মানে ও রবের্তো ফিরমিনোর গোলে জয় পায় গতবারের রানার্স৷ তবে ম্যাচের শুরুতে গোছানো ফুটবল খেলতে পারেনি লিভারপুল। প্রথমার্ধে বেশ কয়েকবার ‘দ্য রেডস’-এর রক্ষণের পরীক্ষা নেয় সাউদাম্পটন। ম্যাচের ২২ মিনিটে দারুণ দক্ষতায় গোল বাঁচান স্প্যানিশ গোলরক্ষক আদ্রিয়ান।

খেলার ধারার বিপরীতে প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে এগিয়ে যায় লিভারপুল। ৪৬ মিনিটে ডি-বক্সের বাঁ-দিকে মিলনারের পাস থেকে বল পেয়ে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন মানে৷ সেনেগালের ফরোয়ার্ডের গোলে প্রথমার্ধে ১-০ এগিয়ে যায় লিভারপুল৷ দ্বিতীয়ার্ধে অর্থাৎ ম্যাচের ৭১ মিনিটে ফিরমিনোর দুর্দান্ত গোলে ব্যবধান বাড়ায় ক্লপের দল৷। মানের পাস থেকে বল পেয়ে ডি-বক্সে ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে জোরাল শটে গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন ব্রাজিলের এই ফরোয়ার্ড। তবে ৮৩ মিনিটে ব্যাক পাস থেকে প্রতিপক্ষের ফরোয়ার্ড ড্যানি ইঙ্গসের পায়ে বল তুলে দিয়ে গোল হজম করেন লিভারপুল৷ তিন মিনিট পর সমতা ফেরানোর দারুণ একটা সুযোগ হাতছাড়া করেন ইঙ্গস।

এর আগে দিনের প্রথম ম্যাচে এমিরেটস স্টেডিয়ামে ২-১ গোলে বার্নলিকে হারায় আর্সেনাল। প্রথমার্ধ ১-১ থাকলেও দ্বিতীয়ার্ধে পার্থক্য গড়ে দেন গ্যাবনের ফরোয়ার্ড আউবামেয়াং। ১৩ মিনিটে কর্নার থেকে এগিয়ে যায় আর্সেনাল। কিন্তু প্রথমার্ধের ঠিক আগে অর্থাৎ ৪৩ মিনিটে প্রতি আক্রমণ থেকে সমতায় ফেরে বার্নলি।

বিরতির পর প্রতিপক্ষের রক্ষণে চাপ বাড়ালেও পোপের দৃঢ়তায় গোলের দেখা পাচ্ছিল না আর্সেনাল। শেষ পর্যন্ত ৬৪ মিনিটে ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে ডান পায়ের জোরাল শটে লক্ষ্যভেদ করেন গত মরশুমে ইংলিশ প্রিমিয়র লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতা আউবামেয়াং।