লন্ডন: ১৭ ম্যাচে ৪৯ পয়েন্ট নিয়ে এদিন কিং পাওয়ার স্টেডিয়ামে লেস্টার সিটির মুখোমুখি হয়েছিল শীর্ষে থাকা লিভারপুল। পক্ষান্তরে ১৮ ম্যাচে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে দাঁড়িয়ে থাকা লেস্টারের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল ঘরের মাঠে জুর্গেন ক্লপের দলকে হারিয়ে পয়েন্টের ব্যবধান কমিয়ে আনা। কিন্তু ম্যাচ যখন শেষ হল, তখন ফলাফল দেখে বোঝার উপায় নেই কারা হোম ম্যাচ খেলতে নেমেছিল আর কারাই বা অ্যাওয়ে।

ব্রেন্ডন রজার্সের দলকে ৪-০ গোলে হারিয়ে সমর্থকদের বক্সিং-ডে উপহার দিল অপ্রতিরোধ্য লিভারপুল। সেইসঙ্গে ১৩ পয়েন্টের ব্যবধান গড়ে নিয়ে প্রিমিয়র লিগ শীর্ষে আরও নিরাপদ হয়েই বছর শেষ করতে চলেছে ইউরোপ সেরারা। যদিও চলতি বছর প্রিমিয়র লিগে আরও একটি ম্যাচ বাকি সালাহদের। জোড়া গোলে কিং পাওয়ার স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার বিপক্ষকে মাটি ধরালেন রবার্তো ফিরমিনো। বাকি দু’টি গোল জেমস মিলনার ও আলেকজান্ডার আর্নল্ডের।

শুরু থেকেই সালাহ-মানেদের একের পর এক আক্রমণের সামনেও প্রথম তিরিশ মিনিট গোলদুর্গ অক্ষত রেখেছিল ফক্স’রা। গোল ছেড়ে বেরিয়ে এসে আলেকজান্ডার আর্নল্ডের ক্লোজ রেঞ্জ শট আটকান লেস্টার গোলরক্ষক ক্যাসপার স্কেমিচেল। লেস্টার ডিফেন্সের ভুলে বারদু’য়েক গোলের কাছে পৌঁছে গিয়েও গোল তুলে নিতে পারেননি সালাহ-হেন্ডারসনরা। অবশেষে ৩১ মিনিটে লকগেট ভাঙে লেস্টার ডিফেন্সের।

আলেকজান্ডার আর্নল্ডের ঠিকানা লেখা বাঁ-প্রান্তিক ক্রস ড্রপ হেডে জালে রাখেন ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার ফিরমিনো। লেস্টার রক্ষণের ভুলের সুযোগ নিয়ে প্রথমার্ধে এরপর ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার সুযোগও চলে এসেছিল লিভারপুলের সামনে। কিন্তু সাদিও মানের প্রচেষ্টা রুখে সতীর্থ জনি ইভান্সের ভুল ঢেকে দেন স্কেমিচেল।

কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে ৭১ মিনিটে লিভারপুলের একটি আক্রমণ বক্সের মধ্যে এক লেস্টার ডিফেন্ডারের হাতে লাগলে পেনাল্টি দিতে কার্পণ্য করেননি রেফারি। এক্ষেত্রে সতীর্থ ডিফেন্ডারের ভুলের সামনে ঢাল হয়ে দাঁড়াতে পারেননি স্কেমিচেল। পরিবর্ত হিসেবে মাঠে নেমে স্পটকিক থেকে বল ঠান্ডা মাথায় জালে রাখেন জেমস মিলনার। ব্যস, এরপর ম্যাচে ফেরার সমস্ত রাস্তা বন্ধ হয়ে যায় লেস্টারের। দ্বিতীয় গোলের পর বাড়তি আত্মবিশ্বাসী ক্লপের ছেলেরা আরও দু’টি গোল তুলে নেয় সাত মিনিটের মধ্যে।

৭৪ মিনিটে লিভারপুলের তৃতীয় গোলটি দুরন্ত দলগত মুভমেন্ট থেকে। এক্ষেত্রে আলেকজান্ডার আর্নল্ডের ডানপ্রান্তিক পাস বক্সের মধ্যে দক্ষতার সঙ্গে রিসিভ করে দ্বিতীয়বারের জন্য বল জালে রাখেন ফিরমিনো। চার মিনিট বাদে স্যাদিও মানের পাস ধরে বক্সের মধ্যে দর্শনীয় শটে ৪-০ করেন আর্নল্ড। জোড়া অ্যাসিস্টের পর গোলের খাতায় নাম তোলেন এই ইংরেজ মিডফিল্ডার।

জয়ের ফলে ১৮ ম্যাচ পর লিভারপুলের পয়েন্ট সংখ্যা ৫২। আর ১৯ ম্যাচ পর দ্বিতীয়স্থানে থাকা লেস্টার দাঁড়িয়ে রইল ৩৯ পয়েন্টেই।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।