ফাইল ছবি

বর্ধমান: সরকারি ছাড়পত্র মেলার পর সোমবার থেকে দেশের একাধিক এলাকার পাশাপাশি বর্ধমান শহরেও রমরমিয়ে মদ বিক্রি চলছিল। শহর বর্ধমানের একাধিক মদের দোকানে সোমবার থেকেই সুরাপ্রেমীদের লম্বা লাইন চোখে পড়ে। তাল কাটল বুধবার সকাল থেকে। হঠাৎ ঝাঁপ বন্ধ বর্ধমান শহরের অধিকাংশ মদের দোকানে। মদ কেনার তুমুল উৎসাহ নিয়ে বেরোলেও শেষমেশ হতাশ হয়েই বাড়ি ফিরলেন বহু সুরাপ্রেমী।

এক মাসেরও বেশি সময় পরে মদের দোকান খোলে সোমবার। গোটা দেশের মতো বর্ধমানেও রমরমিয়ে মদ বিক্রির ছবি চোখে পড়ে ওই দিন। দীর্ঘ লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে মদ কিনে ফেরেন সুরাপ্রেমীরা।

সোমবারের পর মঙ্গলবারও একই ছবি। সকাল-সকাল মদের দোকানে লাইন দিতে শুরু করেন সুরাপ্রেমীরা। প্রশাসনের বেঁধে দেওয়া সময় অনুযায়ী চলে মদ বিক্রি। বর্ধমান শহরে মদের দোকানগুলিতে সুরাপ্রেমীদের ভিড় উপচে পড়ে।

তাল কাটল বুধবার। হঠাৎ করেই শহর জুড়ে বন্ধ হয়ে গেল মদের দোকান। মদ কিনতে অনেকে দোকানের বাইরে লাইনও দিয়েছিলেন। কিন্তু অপেক্ষাই সার। খুলল না দোকান। হতাশ হয়েই বাড়ি ফিরলেন সুরাপ্রেমীরা।

জানা গিয়েছে, বর্ধমানের সুভাষপল্লির এক বাসিন্দা নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ইতিমধ্যেই ওই এলাকা কন্টেনমেন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত করেছে জেলা প্রশাসন। ওই এলাকার এক কিমির মধ্যে বুধবার সব মদের দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় প্রশাসন। তবে ওই দোকানগুলি ছাড়াও শহর বর্ধমানের অধিকাংশ মদের দোকানই এদিন বন্ধ ছিল।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ