বার্সেলোনা: ফ্রি-কিক থেকে গোল করা যেন নেশায় পরিণত করে ফেলেছেন লিওনেল মেসি। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিপক্ষ বক্সে তাঁর ক্ষিপ্রতা যে কিছুটা কমেছে, সেটা অস্বীকার করার জায়গা নেই। তাই নয়া এই সেটপিস অস্ত্রে শান দিয়ে প্রতিপক্ষ রক্ষণকে ধ্বংস করার খেলায় মেতেছেন আর্জেন্তাইন সুপারস্টার। শনিবার সেল্টা ভিগোর বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক এল মেসির সোনায় মোড়া বাঁ-পা থেকে, যার তিনটিই সেটপিস। প্রথমটি পেনাল্টি থেকে হলেও পরের ফ্রি-কিক দু’টি দেখলে মনে হতে বাধ্য কোনও শিল্পী যেন ক্যানভাসে ফুটিয়ে তুলছেন তাঁর কঠিন অধ্যাবসায়।

সবধরনের প্রতিযোগীতা মিলিয়ে চলতি মরশুমে এই নিয়ে ফ্রি-কিক থেকে চার গোল করলেন বার্সার মধ্যমনি। স্লাভিয়া প্রাগের বিরুদ্ধে অপ্রত্যাশিত গোলশূন্য ড্রয়ের পর শনিবার মেসি ম্যাজিকে সেল্টা ভিগোকে হারিয়ে ফের লিগের মগডালে কাতালানরা। একইসঙ্গে লা-লিগায় সর্বাধিক হ্যাটট্রিকের নিরিখে এদিন চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোকে ছুঁয়ে ফেললেন লিও। এদিন ২৩ মিনিটে পেনাল্টি থেকে সেল্টা ভিগোর কফিনে প্রথম পেরেকটি পোঁতেন তিনি। বক্সের মধ্যে জুনিয়র ফিরপোর বাঁ-প্রান্তিক ক্রস জোসেফ আইদো’র হাতে লাগলে পেনাল্টি পায় বার্সা। স্পটকিক থেকে নিশানায় অব্যর্থ থাকেন আর্জেন্তাইন সুপারস্টার।

যদিও বার্সার প্রথম গোলের পর ম্যাচে কিছু সময়ের জন্য টুইস্ট আনেন সেল্টার লুকাস ওলাজা। ২০ গজ দূর থেকে দুরন্ত কার্লিং ফ্রি-কিকে ম্যাচে সমতা ফিরিয়ে আনেন তিনি। ওলাজার ফ্রি-কিক যেন আরও তাতিয়ে দেয় মেসিকে। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময় ২৫ গজ দূর থেকে পালটা ফ্রি-কিকে দলকে ফের এগিয়ে দেন ক্লাবের সর্বকালীন সর্বাধিক গোলস্কোরার।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ফের ফ্রি-কিক থেকে দৃষ্টিনন্দন গোল মেসির। এ যেন প্রথম গোলেরই প্রতিচ্ছবি। কার্লিং ফ্রি-কিকে বিপক্ষ গোলরক্ষককে ম্যাচে তৃতীয়বারের জন্য পরাস্ত করে লা-লিগার ৩৪তম হ্যাটট্রিকটি সম্পন্ন করেন লিও। এরপর গোলের সহজ সুযোগ পেয়েও নষ্ট করেন ফরাসি স্ট্রাইকার আতোয়াঁ গ্রিজম্যান। উলটোদিকে বার্সা গোলরক্ষক টার স্টিগেনকে একবার পরীক্ষার সামনে ফেলে দেন পিয়োনে সিসতো। তবে তা ব্যবধান কমানোর জন্য যথেষ্ট ছিল না।

ব্যবধান বাড়ানোর জন্য ভালভের্দে শেষ ১৭ মিনিট সুয়ারেজকে নামালেও ৮৫ মিনিটে বার্সার হয়ে ব্যবধান ৪-১ করেন আরেক পরিবর্ত সার্জিও বুসকেটস। এই জয়ের ফলে ১২ ম্যাচে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই রইল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা।