কলকাতাঃ  আশঙ্কা ছিলই। আর তা সত্যি করেই বাড়ল স্বাস্থ্যবিমার প্রিমিয়াম। এক ধাক্কায় অনেকটাই বাড়ল প্রিমিয়ামের অংক। করোনার কারণে এই প্রিমিয়ামের অংক বাড়াতে বাধ্য হয়েছে বলে দাবি। ন্যাশনাল ইনসিওরেন্স কোম্পানি তাদের স্বাস্থ্যবিমা প্রকল্পে ওই খরচ বাড়িয়েছে।

যে সব গ্রাহক নতুন করে এই সংস্থা থেকে পলিসি কিনবেন, এখন থেকেই বাড়তি টাকা দিতে হবে। যাঁরা পুরনো গ্রাহক আছেন, আগামী মাসে বিমা রিনিউয়ালের তারিখ থাকলে তখন গুনতে হবে বাড়তি খরচ। টাকার অংকটা মোটেই কম নয়, অনেকটাই বেশি। এমনটাই খবর প্রকাশিত হয়েছে বর্তমান সংবাদমাধ্যমে।

প্রকাশিত খবর মোতাবেক, ন্যাশনাল ইনসিওরেন্স কোম্পানি তাদের প্রিমিয়াম দীর্ঘদিন বেশ সস্তার মধ্যেই রেখেছিল। কিন্তু আচকাই বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে প্রিমিয়ামের এই অংক।

প্রকাশিত খবর মোতাবেক, ন্যাশনাল ইনসিওরেন্স গত জুলাই মাস থেকে স্বাস্থ্যবিমার প্রিমিয়াম বাড়ানোর কথা ঘোষণা করে। কিন্তু যাঁরা ইতিমধ্যেই এই সংস্থার গ্রাহক রয়েছেন, তাঁদের তিন মাসের ‘গ্রেস’ বা ছাড় দেওয়া হয়। অর্থাৎ জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে যাঁদের বিমা প্রকল্প রিনিউ করার কথা, তাঁরা পুরনো হারেই আগামী এক বছরের জন্য প্রিমিয়ামের খরচ চোকাতে পারবেন।

কিন্তু ১ অক্টোবর বা তারপর যদি সেই রিনিউয়ালের তারিখ হয়, তাহলে নতুন হারে খরচ মেটাতে হবে। যদিও কিছুটা স্বস্তির খবরও রয়েছে। প্রকাশিত খবর জানাচ্ছে, কম বয়সিদের ক্ষেত্রে বিমার খবর খুব একটা বাড়েনি। তা নাগালের মধ্যেই রয়েছে।

কিন্তু যাঁদের বয়স বেশি, বিশেষত প্রবীণরা সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়বেন নয়া এই প্রিমিয়াম চার্টে। বিশেষ করে ৬০ বা তার বেশি বয়সিদের জন্য প্রিমিয়াম প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।

পাশাপাশি বাংলা ওই দৈনিকে প্রকাশিত খবর আরও জানাচ্ছে যে, ন্যাশনাল ইনসিওরেন্স এতদিন বয়সের যে স্তর বা ‘স্ল্যাব’ অনুযায়ী প্রিমিয়াম নিত, তাতেও কিছু রদবদল হয়েছে।

প্রত্যেকদিনই বাড়ছে করোনা আতঙ্ক। হু হু করে বাড়ছে সংক্রমণ। বেসরকারি হাসপাতালে করোনার চিকিৎসা আকাশ ছোঁয়া। কয়েক লক্ষ টাকা খরচ। সেদিকে অনেকেই বিমার আতায় আসতে চলেছে। সেক্ষেত্রে যারা এই বিমা করছেন তাঁদের অনেক মোটা টাকা দিতে হবে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।