কলকাতা: বদলাবে না ফলাফল, সেটা হাড়ে-হাড়েই জানেন ইস্টবেঙ্গল কর্তারা। তবু ফুটবলের স্পিরিটটা নষ্ট হচ্ছে কোনও একটি নির্দিষ্ট ক্লাবের জন্য। তাই আই লিগে চেন্নাই সিটি-মিনার্ভা ম্যাচে গড়াপেটার যে ভ্রূ-কুটি রয়েছে, তার শেষ দেখতে চাইছে ইস্টবেঙ্গল।

কোয়েম্বাটোরে খেতাব নির্ণায়ক ম্যাচে সত্যিই কি গড়াপেটার ইন্ধন ছিল। ম্যাচ কমিশনারের রিপোর্ট ও ফেডারেশনের ইন্টিগ্রিডি অফিসারের রিপোর্ট কিন্তু বলছে অন্য কথা। তবে ফেডারেশনের শীর্ষ কর্তারা এবিষয়ে বিশেষ মাথা ঘামাতে নারাজ। পেদ্রোর স্পট-কিক নেওয়ার ভিডিও প্রসঙ্গে তারা জানাচ্ছেন, এটা ফুটবলের মত ট্যাকটিকাল গেমের অঙ্গ। এভাবে অনেক ফুটবলারই গোলরক্ষককে পেনাল্টি নেওয়ার আগে বিভ্রান্ত করে।

আরও পড়ুন: রোনাল্ডোর অভাব ঢাকতে জিদানকে সেতু করে দুই তারকায় টার্গেট রিয়ালের

কিন্তু ফেডারেশনের সাফাই মনঃপুত হয়নি ইস্টবেঙ্গল কর্তাদের। উল্লেখ্য, ম্যাচ কমিশনারের রিপোর্টে উল্লেখ করেন ‘ম্যাচটিতে সঠিক স্পিরিটে ফুটবল হয়নি’। এই রিপোর্ট যেন আরও তাতিয়ে দিয়েছে লাল-হলুদ কর্তাদের। তাই পরবর্তী পদক্ষেপ কী হতে পারে, তা ঠিক করতে চেন্নাই-মিনার্ভা ম্যাচের সিডি পুনরায় দেখেন ইস্টবেঙ্গল কর্তারা।

আরও পড়ুন: একই দলে ১১ জন বিরাট থাকতে পারে না

এরপর সেই সিডি তারা বেঙ্গালুরুতে ‘লিগ্যাল সেলে’র কাছে পাঠিয়ে দেন কর্তারা। ম্যাচের সিডি দেখে ‘লিগ্যাল সেলে’র যদি মনে হয় ফেডারেশনের কাছে প্রতিবাদ করার মত জায়গা রয়েছে, তবেই ফেডারেশনের দ্বারস্থ হবেন তারা। অর্থাৎ পরবর্তী পদক্ষেপ পুরোটাই নির্ভর করছে লিগ্যাল সেলের উপর। তবে জানা যাচ্ছে এএফসি’র প্রতিনিধি ওই ম্যাচে হাজির থাকায় প্রথমে গুরুত্ব না দিতে চাইলেও পরবর্তীতে ফেডারেশন বিষয়টিকে আতস কাঁচের নীচে রাখছে।