তিমিরকান্তি পতি,বাঁকুড়া: কেন্দ্রীয় সরকারের জনবিরোধী নীতি, শ্রম আইন সংশোধন করে শ্রমিকদের অধিকার খর্ব, রেল-কয়লা বেসরকারী করণ, পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির বিরোধীতা ৮ ঘন্টা কাজের পরিবর্তে ১২ ঘন্টা কাজ চালু করার প্রতিবাদ জানিয়ে আন্দোলন তীব্র করছে বামেরা।

শুক্রবার সারা দেশ ও এরাজ্যের সঙ্গে বাঁকুড়া জেলা জুড়েও কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়ন ও শিল্প ভিত্তিক ফেডারেশনের ডাকে ‘প্রতিবাদ কর্মসূচী’ পালিত হয়। লাল ঝাণ্ডা নিয়ে বাম নেতা কর্মীদের দৃপ্ত মিছিল ও পথসভায় জ্বালাময়ী বক্তব্যে মুখরিত হয়ে ওঠে বাঁকুড়ার আকাশ বাতাস।

নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় সরকারকে ‘জনবিরোধী, শ্রমিক বিরোধী’ আখ্যা দিয়ে তাদের আর্থিক নীতি ও সাম্প্রদায়িক বিভাজনের রাজনীতি করার অভিযোগ তুলে এদিন জেলার সর্বত্র সরব হন বাম নেতৃত্ব।

বাঁকুড়া শহরের কেরানীবাঁধ সংলগ্ন ৬০ নম্বর জাতীয় সড়কে এই কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন সিপিআইএম কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অমিয় পাত্র, দলের নেতা প্রভাত কুসুম রায়, ধলডাঙ্গা মোড়ে সিআইটিইউ নেতা প্রতীপ মুখোপাধ্যায় টিইউসিসি-র শ্যামাপদ ডাঙ্গর, গঙ্গাজলঘাটির অমরকাননে সিপিআইএম নেতা সুনীল হাঁসদা, সুদীপা বন্দোপাধ্যায়, গৌতম চট্টোপাধ্যায় বড়জোড়ায় দলের বিধায়ক সুজিত চক্রবর্তী প্রমুখ।

এদিন জেলার সর্বত্র এই প্রতিবাদ মিছিল ও পথসভায় বাম নেতৃত্বের তরফে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির মতো নানান সিদ্ধান্তের বিরোধিতার পাশাপাশি রাজ্যের তৃণমূল সরকার এই কাজে মদত যুগিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ তোলা হয়।

একই সঙ্গে ৪১ টি কয়লা ব্লক আম্বানিদের হাতে তুলে দেওয়ার প্রতিবাদে তিন দিন ব্যাপি কয়লা খনি শ্রমিকদের দেশব্যাপি ধর্মঘটের প্রতি সংহতিও জানানো হয়।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ