স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: উত্তর ২৪ পরগণার রাজনীতিতে নাটক অব্যাহত৷ মঙ্গলবার হালিশহর পুরসভার তৃণমূলত্যাগী বিজেপি কাউন্সিলররা ফের তৃণমূলে ফিরে এসেছেন৷ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কাঁচড়াপাড়া পুরসভাতেও একই সম্ভবনা তৈরি হল৷ এই পুরসভায় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যাওয়া সাতজন কাউন্সিলর এদিন বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আসেন৷ তাঁদের দমকলমন্ত্রী সুজিত বোসের ঘরে বসিয়ে রাখা হয়েছে৷ তাঁরা আবার তৃণমূলে ফিরতে আগ্রহী বলে জানা গিয়েছে৷ তবে সেব্যাপারে এখনও আনুষ্ঠানিক কিছু জানায়নি তৃণমূল৷

লোকসভা ভোটের ফল বেরোতেই ক্ষমতার রাশ ঘুরেছিল৷ একাধিক পুরসভার রং সবুজ থেকে বদলে রাতারাতি গেরুয়া হয়ে যায়৷ তারমধ্যে হালিশহর, কাঁচড়াপাড়া, নৈহাটি ও বীজপুর, এই পাঁচটি পুরসভাই রয়েছে৷ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যাওয়া হালিশহর পুরসভার আটজন কাউন্সিলর মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে ফের তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন৷ তারপরই সেই কাউন্সিলরদের সঙ্গে নিয়ে উচ্ছ্বসিত পুর ও নগরোন্নয়ন ফিরহাদ হাকিম গেরুয়া শিবিরকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘ওদের ওই মুখে গুটখা পরিবেশে এই কাউন্সিলরদের হাঁসফাঁস অবস্থা হচ্ছিল। ওরা তাই ফের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভালোবাসার পরিবেশে ফিরে এল। হালিশহর তৃণমূলের ছিল, আছে, থাকবে।’এর মধ্যেই বুধবার সটান বিধানসভায় চলে এলেন কাঁচড়াপাড়া পুরসভার সাতজন কাউন্সিলর৷ জানা গিয়েছে, তাঁরা সরাসরি দলনেত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চাইছেন৷ উল্লেখ্য, মুকুল রায়ের উপস্থিতিতে কাঁচরাপাড়া পুরসভা ২৪ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ১৭ জন যোগ বিজেপিতে গিয়েছিলেন। তৃণমূল মনে করছে, এই সাত কাউন্সিলর দলে ফিরলেও পুরবোর্ডের দখল পেতে আরও ছ’জন কাউন্সিলরের সমর্থন দরকার৷

সূত্রের খবর, ১৩ জন কাউন্সিলরেরই এদিন বিধানসভায় আসার কথা ছিল৷ কিন্তু সাতজন এলেও বাকিরা এখনও এসে পৌঁছননি৷আপাতত গোটা বিষয়টি গোপন রাখছে তৃণমূল৷

এদিকে, হালিশহর পুরসভা বিজেপির দখলে থাকবে বলে এদিন দাবি করেছেন মুকুল-পুত্র শুভ্রাংশু রায়৷