হাওড়া: ‘গো ব্যাক মোদী’, হাওড়ায় বিক্ষোভ বামেদের। দু’দিনের কলকাতা সফরে সফরে আজ দুপুরেই শহরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রীর সফর ঘিরে একাধিক জায়গায় এনআরসি, সিএএ ইস্যুতে তাঁর যাত্রাপথে বিক্ষোভ দেখানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বামপন্থী ও অন্যান্য বেশ কিছু সংগঠন।

প্রধানমন্ত্রী শহরে আসার আগেই শনিবার সকালে হাওড়ায় বিক্ষোভ দেখায় বামেরা। বামফ্রন্টের তরফ থেকে এই বিক্ষোভ হয়। তবে দলীয় পতাকা হাতে নয়, বিক্ষোভকারীদের হাতে ছিল কালো পতাকা। ছিল কালো রঙের গ্যাস বেলুন। “গো ব্যাক মোদী” লেখা প্ল্যাকার্ড ছিল বিক্ষোভকারীদের হাতে। হাওড়া স্টেশনের পুলিশ কিয়স্কের সামনে বিক্ষোভ দেখান বাম কর্মী ও সমর্থকেরা।

উল্লেখ্য, শনিবার সন্ধেয় হাওড়ার বেলুড় মঠে যাওয়ার কথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর। তারও আগে নরেন্দ্র মোদী কলকাতার মিলেনিয়াম পার্ক থেকে সন্ধেয় হাওড়া ব্রিজের লাইট অ্যান্ড সাউন্ড অর্থাৎ ‘আলোকধ্বনি’ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন।

শনিবার দুপুরের পর কলকাতায় এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রথমে যাবেন কেন্দ্রের তথ্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রকের একটি পেন্টিং মিউজিয়ামের উদ্বোধনে। এই মিউজিয়াম উদ্বোধন হবে ওল্ড কারেন্সি বিল্ডিংয়ে। সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রী যাবেন মিলেনিয়াম পার্কে। হাওড়া ব্রিজে লাইট অ্যান্ড সাউন্ড ব্যবস্থার উদ্বোধনের পর বেলুড় মঠে যাবেন প্রধানমন্ত্রী। বেলুড় মঠে গিয়ে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটাবেন তিনি। কথা বলবেন মঠের সন্ন্যাসীদের সঙ্গে। ঘুরে দেখবেন স্বামী বিবেকানন্দের স্মৃতি বিজড়িত একাধিক জায়গা।

এদিকে, শনিবার পশ্চিমবঙ্গে আসার আগেই টুইট করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। টুইটে তিনি লেখেন, ‘আজ এবং আগামিকাল পশ্চিমবঙ্গে থাকতে পেরে উচ্ছ্বসিত। রামকৃষ্ণ মিশনে সময় কাটাতে পারব ভেবে আমি আনন্দিত।’ প্রয়াত বেলুড় মঠের প্রাক্তন প্রধান স্বামী আত্মস্থানন্দকে নিয়েও টুইটে লেখেন প্রধানমন্ত্রী। এই প্রসঙ্গে মোদী লেখেন, ‘রামকৃষ্ণ মিশনে যাব তাও একটা শূন্যতাও থাকবে! যে ব্যক্তি আমাকে ‘জন সেবাই প্রভু সেবা’-এর মহৎ নীতিটি শিখিয়েছিলেন, শ্রদ্ধেয় স্বামী আত্মাস্থানন্দজি সেখানে নেই।’

প্রধানমন্ত্রীর সফর ত্রুটিমুক্তি রাখাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ রাজ্য সরকারের কাছে। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি সফরে শহরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও স্বাভাবিক রাখাটা জরুরি। এই ব্যাপারে কোনও রকম গাফিলতি হলে বিজেপি এ রাজ্যের প্রশাসনের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে বলে আওয়াজ তুলতে পারে। অবশ্য রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন, নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে পোর্টে ট্রাস্টের অনুষ্ঠানে দেখা যেতে পারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। ফলে মোদীর নিরাপত্তা নিয়ে কোনও প্রশ্ন উঠুক চাইছে না রাজ্য সরকারও।