পাটনা: একে জ্বরের প্রকোপে শিশু মৃত্যুর মিছিল চলছে রাজ্যে, এরই মাঝে প্রকাশ্যে এল মারাত্মক ঘটনা। বাঁ হাত ভাঙা বালকের প্লাস্টার করা হল ডান হাতে।

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে বিহারের দ্বারভাঙা জেলার দ্বারভাঙা মেডিক্যাল কলেজ এবং হাসপাতালে। সাত বছরের ওই বালকের নাম ফায়জান। গরমের দুপুরে আম পারতে গাছে উঠেছিল সে। সেই গাছ থেকে পরে গিয়েই ঘটে বিপত্তি।

আরও পড়ুন- মোদীর সঙ্গে সাক্ষাত, ভারত-মার্কিন সম্পর্ক দৃঢ় করার বার্তা পম্পেওর

ফায়জানের বাঁ হাত ভেঙে যায়। অসহ্য যন্ত্রণার কাতরাচ্ছিল সেই বালক। তাকে দ্বারভাঙা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভরতি করে তার বাড়ির লোকেরা। সেখানেই সংশ্লিষ্ট বিভাগের চিকিৎসকেরা ভুল হাতে প্লাস্টার করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

আক্রান্ত ফায়জান জানিয়েছে যে বাঁ হাত ভেঙেছে কিন্তু ওরা(চিকিৎসকেরা) ডান হাতে প্লাস্টার করে দিল। প্লাস্টার করার সময় একাধিকবার সেই মারাত্মক ভুল বলার চেষ্টা করেছিল বলে দাবি করেছে ফায়জান। কিন্তু সেই কথায় কেউ কর্ণপাত করেনি বলে অভিযোগ করেছে সে। তার কথায়, “আমি অনেকবার বলার চেষ্টা করেছিলাম যে আমার ভুল হাতে প্লাস্টার করা হচ্ছে। কিন্তু কেউ আমার কথায় কোনও গুরুত্ব দেয়নি।”

আরও পড়ুন- কেন্দ্রীয় প্রকল্পের চার কোটি টাকা আত্মসাৎ, অভিযুক্ত তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত

চিকিৎসকের কর্তব্যে গাফিলতির অভিযোগ তুলে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন ফায়জানের মা। তিনি বলেছেন, “এটা গাফিলতির একটা চরম পর্যায়। হাসপাতাল থেকে আমাদের একটা ট্যাবলেটও দেওয়া হয়নি। সমগ্র ঘটনার তদন্ত হওয়া উচিত।”

এই ভুল হাতে প্লাস্টার খবরটি প্রকাশ্যে আসতেই নড়ে বসেছে বিহারের স্বাস্থ্যমন্ত্রক। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর এবং মন্ত্রী মঙ্গল পাণ্ডে অবিলম্বে এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছেন।

এই ঘটনায় জড়িত সিকিৎসক সহ অন্যান্য ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের সুপার ডাঃ রঞ্জন প্রসাদ। তিনি বলেছেন, “এটা একটা অত্যন্ত নিন্দনীয় ঘটনা। যত দ্রুত সম্ভব আমি বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করছি।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “স্বাস্থ্যমন্ত্রী সমগ্র বিষয়টির তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন। এই ঘটনায় জড়িত সকলের মতামত চেয়ে পাঠিয়েছেন।”