তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: ‘আমাদের লড়াই তৃণমূল ও বিজেপি উভয় পক্ষের বিরুদ্ধেই’। এভাবে স্পষ্ট ভাষাতেই বামেদের অবস্থান স্পষ্ট করলেন সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। বৃহস্পতিবার বাঁকুড়ায় বামেদের মহামিছিলে নেতৃত্ব দিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘‘বিজেপি ও তৃণমূল হল একই মুদ্রার এপিট আর ওপিট। তৃণমূল আর বিজেপির মধ্যে কোন পার্থক্য হয় না।’’

আরও পড়ুন: বিজেপি নেতার বাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর, চোর এসেছিল বলে দাবি তৃণমূলের

তৃণমূল-বিজেপি বিরোধী সমস্ত মানুষের উদ্দেশ্যে তাঁর আহ্ববান, ‘‘সাধারণ মানুষের দাবী দাওয়া নিয়ে একমাত্র লড়াই করে বামপন্থীরা। নির্বাচন কমিশনের ভূমিকার কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, আদর্শ নির্বাচন বিধি লঙ্ঘন করে প্রধানমন্ত্রী যেসব কথা বলছেন তা নিয়ে তাদের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ করা সত্ত্বেও কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।’’

ভোটের দিন মুর্শিবাদে কংগ্রেস কর্মী খুন ও বিভিন্ন জায়গায় দলের প্রার্থীদের উপর হামলার প্রসঙ্গ টেনে সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, ‘‘নির্বাচন কমিশন নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ।’’ নির্বাচন কমিশনের দয়া দাক্ষিণ্যের উপর নির্ভর না শিরদাঁড়া সোজা রেখে সাধারণ মানুষকে ভোটধিকার প্রয়োগের পরামর্শ দিয়ে তিনি আরো বলেন, আক্রমণ হলে প্রতিবাদ থেকে প্রতিরোধ করতে হবে।

বৃহস্পতিবার ‘লাল সুনামী’র সাক্ষী থাকলো বাঁকুড়া। জেলার দুই লোকসভা কেন্দ্রের সিপিএমের প্রার্থী অমিয় পাত্র ও সুনীল খাঁ এর সমর্থনে শহরের পাঁচবাগা থেকে লালবাজার বামেদের মহা মিছিলে সারা জেলা থেকে অগণিত বাম কর্মী সমর্থক যোগ দিয়েছিলেন। চারশো ঢাক, যুব, মহিলা ও আদিবাসী ব্রিগেডকে সামনে রেখে সুসজ্জিত লাল পতাকা বাহি এই মিছিল পথ এগোনোর সঙ্গে সঙ্গেই দীর্ঘ হয়েছে।

এদিন জেলার উত্তর থেকে দক্ষিণ সব জায়গার বাম কর্মী সমর্থকদের গন্তব্য হয়ে উঠেছিল বাঁকুড়া শহর। শুধু সিপিএম বা বামফ্রন্ট নয়, কোন রাজনৈতিক দলের মিছিলে এত মানুষের ভীড় সম্প্রতি বাঁকুড়া শহর দেখেছে কিনা অতি বড় বাম বিরোধী মানুষও মনে করতে পারছেন না।

আরও পড়ুন: ‘কুর্তা পাঠালে দোষটা কোথায়’, সাফাই দিলেন মমতা

আগামী ১২ মে জেলায় ভোট। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে জেলার বাঁকুড়া ও বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্র দু’টি হাতছাড়া হয় সিপিএমের। সেই সময় রাজনীতিতে নবাগত তৃণমূলের মুনমুন সেনের কাছে বাঁকুড়া কেন্দ্রের ন’বারের সাংসদ ও বরিষ্ট সিপিএম নেতা বাসুদেব আচারিয়া হেরে যান। বিষ্ণুপুর কেন্দ্রটিও হাতছাড়া হয় সিপিএমের। এই পরিস্থিতিতে এদিনের মিছিলে মানুষের ঢল দেখে উজ্জীবিত বাম নেতৃত্ব। একই সঙ্গে সিপিএমের আজকের মিছিল শাসক দলের বুকে কাঁপন ধরানোর পক্ষে যথেষ্ট বলেই মনে করছেন জেলা রাজনৈতিক মহলের একাংশ।