CPM West Bengal ফেসবুক পেজ থেকে প্রাপ্ত

কলকাতা: ব্রিগেডের বিরাট বাম জনসভা যে আশা দেখিয়েছিল তা নির্বাচনী ফলের নিরিখে শুকিয়ে কাঠ হয়ে গিয়েছে৷ বাংলা থেকে ধুয়ে মুছে সাফ বামেরা৷ এই রাজ্যে বামপন্থী শক্তি দূর ভবিষ্যতে তেমন প্রভাব দেখাতে পারবে না বলেই মনে করা হচ্ছে৷

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন সেই অর্থে দেশের বাম শক্তির কাছেও প্রবল ধাক্কা হয়েই থাকবে৷ কেরলে পরিবর্তনের ধাক্কায় কংগ্রেসের কাছে বড়সড় ব্যবধানে হারছে বামেরা৷ ত্রিপুরাতে আগেই সরকারের পরিবর্তন হয়েছে৷ তার প্রভাব পড়েছে লোকসভা নির্বাচনেও৷ বিহারেও থমকে গিয়েছে বাম শক্তির৷ বেগুসরাই ও আরও কয়েকটি কেন্দ্রে জন রায় সেই ইঙ্গিত দিয়ে দিল৷ তামিলনাড়ুতে ডিএমকের সঙ্গে জোট করে একটু আশার আলো বামেদের৷

কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের পরিস্থিতি তীব্র উত্তেজনাকর৷ নির্বাচনী ফলাফলে বিভিন্ন লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপির চরম উত্থান চমকপ্রদ৷ এমন সব কেন্দ্রে গেরুয়া শিবির তৃণমূলকে কষাঘাত করেছে তা শাসক দলও চিন্তা করতে পারেনি৷ মূলত লড়াইটা হয়েছে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যেই৷ তাতে বামেরা ক্ষীণতনু হয়ে গেলেন৷

বঙ্গ বামেদের টানা তিন দশক শাসনে থাকা রাজ্যে তৈরি করেছিল একটি বামশক্তি৷ সিপিএম নেতৃত্বাধীন সেই শক্তি জাতীয় রাজনীতিতে বড়সড় ছাপ রেখেছে অনেকবার৷ ত্রিপুরায় দুটি লোকসভা আসন থাকলেও তাতে টানা দু দশক ক্ষমতায় থেকে সেখানেও তৈরি হয়েছিল বাম শক্তির অপর কেন্দ্র৷ আর কেরলে বামপন্থীরা বারে বারে ক্ষমতায় এসে নিজেদের শক্তি ধরে রেখেছেন৷

লোকসভা নির্বাচনে বাংলার বামপন্থীদের ভোট ব্যাংক একেবারেই শেষ৷ ক্ষমতা হারানোর পরেও ৩০ শতাংশ ভোট ধরে রাখলেও এবারের নির্বাচনে সেটি সিঙ্গল ডিজিটে নেমে যাওয়ার প্রবণতা মিলতে শুরু করেছে৷ তার সঙ্গে একটিও আসন মেলেনি৷ এখানেই বামশক্তি নিস্তেজ৷ সম্প্রতি চিনের সংবাদপত্রে উঠে এসেছে- আগামী সময়ে ভারতে বামপন্থীরা ফের শক্তি নিয়ে উঠে আসবে৷ এই খবর পশ্চিমবঙ্গ সহ দেশের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে গুরুত্ব দিয়েই প্রকাশ করা হয়৷ তারপরে সিপিএম সর্বভারতীয় সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি বলেছিলেন- ‘নীল আকাশে লাল তারা’৷ নির্বাচনী ফলাফল সেই আবেগে বড়সড় ঝাপটা মেরে দিল৷

লোকসভার আগে সিপিএম ও বামফ্রন্টের অন্যান্য দলগুলির মিলিত জনসভায় হাজির হয়েছিলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য৷ অসুস্থ বুদ্ধবাবু মঞ্চে উঠতে না পারলেও ভিড় দেখে খুশি হয়েছিলেন৷ জানিয়েছিলেন-এই ভিড় ভোট কেন্দ্র পর্যন্ত নিয়ে যেতে হবে৷ নির্বাচনে যে সেটা সম্ভব হয়নি তা ফলাফলেই পরিষ্কার৷ ক্রমাগত রক্তক্ষরণ হয়ে চলেছে বামফ্রন্টের৷

রাজ্যে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে লড়াইটা স্পষ্ট তৃণমূল কংগ্রেস বনাম বিজেপি৷ তৃতীয় ক্ষয়িষ্ণু শক্তি হয়ে কংগ্রেস থাকলেও লোকসভার ফলে বাংলা থেকে মুছে যাওয়া বামেদের ঘুরে দাঁড়ানো অসম্ভব বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷