স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: লকডাউন পরিস্থিতিতে আয়কর বিহীন মানুষদের ৩ মাসের বিদ্যুৎ বিল মকুব, প্রতি মাসে বিদ্যুৎ এর রিডিং, প্রতি মাসে বিল নেওয়া ও বিদ্যুৎ বিল নেওয়ার জন্য এটিপি চালুর দাবিতে আন্দোলনে নামলো বাম গণ সংগঠনগুলি।

শুক্রবার বাঁকুড়ার কোতুলপুরে ভারতের ছাত্র ফেডারেশন, ভারতের গণতান্ত্রিক যুব ফ ফেডারেশন ও ভারতের গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতির সদস্যরা মিছিল করে স্থানীয় বিদ্যুৎ দফতরের অফিসের সামনে পৌঁছন। পরে একটি প্রতিনিধি দল স্টেশন ম্যানেজারের কাছে পৌঁছে তাদের দাবিপত্র তুলে দেন।

এদিনের ডেপুটেশন কর্মসূচীতে অংশ নিয়ে ভারতের গণতান্ত্রিক যুব ফেডারেশনের বাঁকুড়া জেলা সভাপতি ধনঞ্জয় বেজ বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউনে সাধারণ মানুষের হাতে কাজ নেই। সেকারণে আয়কর দেয় না এমন গ্রাহকদের তিন মাসের বিদ্যুৎ বিল সম্পূর্ণ মকুবের দাবি আমরা জানিয়েছি। একই সঙ্গে প্রতি মাসে বিদ্যুতের বিল নেওয়া ও হুকিং বন্ধ সহ ১০ দফা দাবি আমরা রেখেছি।

এছাড়াও যাতে সপ্তম বামফ্রন্ট সরকারের আমলে প্রস্তাবিত কাটোয়া বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাজ শুরু করার দাবিও জানানো হয়েছে বলে তিনি জানান। এই বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের কোতুলপুর গ্রাহক পরিষেবা কেন্দ্রের স্টেশন ম্যানেজার দেবব্রত সেন বলেন, বাম গণ সংগঠন গুলি যে প্রস্তাব দিয়েছে তার বেশীরভাগ আমাদের এক্তিয়ারভূক্ত নয়। সম্পূর্ণ বিষয়টি বিদ্যুৎ ভবন ও রাজ্য বিদ্যুৎ দফতরের বিষয়। স্থানীয় সমস্যা গুলি সমাধানে তারা যথেষ্ট সচেষ্ট বলেই তিনি জানিয়েছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।