স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: দেওয়াল লিখন, পোস্টার রয়েছে৷ কিন্তু যুগের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সে সবকে ছাপিয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া৷ ভোটের সময় সোশ্যাল মিডিয়ার দেওয়ালেই উঠছে তুফান৷ বাম থেকে ডান, রাজনৈতিক দলগুলোর প্রচারের হাতিয়ার এখন এই মাধ্যম৷ সোশ্যাল মিডিয়ার দেওয়ালেই তৈরি হচ্ছে ভোটের টিকা-টিপ্পনির নানা কবিতা, মজাদার ছড়া৷

আরও পড়ুন: চুপ থেকেও ট্রোলে’র শিকার চৌমাহার ‘বাতিল’ তাপস

নতুন প্রজন্ম থেকে বেশি বয়সীরা৷ ভোটের আবহে মজে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপে লেখা নানা কবিতার লাইনে৷ কোনওটা ভালো, নজরকাড়া৷ আবার কোনওটা নিয়ে কমিশনের দ্বারস্থ রাজনৈতিক দলগুলো৷ দেওয়াল হচ্ছে না নোংরা, ফলে খুশি গৃহস্থও৷

নতুন এই মাধ্যমের গুরুত্ব ভাবিয়েছে একদা বাংলায় কম্পিউটার প্রবেশের বিরোধী সিপিএমকেও৷ মুখে সর্বহারা দলের গায়ে এখন যুগের হাওয়া৷ অতীতে দেওয়াল লিখনে তাদের সৃষ্টিশীল সুখ্যাতি ছিল৷ সংগঠনে লোক কমেছে৷ সঙ্গে শাসক দলের চোখ রাঙানির অভিযোগ৷ কিন্তু এই ভোট অস্বিত্ব রক্ষার লড়াই৷ তাই নতুন প্রজন্মকে কাছে টানতে ও সহজেই ভোটারদের মনে পৌঁছে যেতে এবার উদ্যোগী তারাও৷ পুঁজি সোশ্যাল মিডিয়া৷

আরও পড়ুন: বিমানবাবুর কথা শুনলে মনে হচ্ছে ‘ফাঁসির সময়’ দিচ্ছেন: প্রদীপ ভট্টাচার্য

 

‘সিপিএম-ওয়েস্ট বেঙ্গল’ নামে পেজ রয়েছে ফ্রন্টের বড় শরিকের৷ সেই পেজেই ফুটে উঠছে দলের নানা কর্মসূচির কথা৷ সিপিএমের বহু সমর্থক সেখানে নানা কথা, কবিতা ট্যাগ-ও করছে৷ যা দেখে হারিয়ে যাওয়া আত্ম বিশ্বাস ফিরে পাচ্ছে আলিমুদ্দীনের নেতারা৷ তাই দেওয়ালে ছন্দের সৃষ্টিকে তারা এবার ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপে ফুটিয়ে তুলতে উৎসাহিত করছে৷ বামেদের সমর্থন করে সমর্থকদের লেখা পদ্য, স্লোগান এবার ভেসে উঠবে সিপিএমের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে৷

শুধু তাই নয়৷ সিপিএম ওয়েস্ট বেঙ্গল ফেসবুক পেজেই দেওয়া হয়েছে একটি নম্বর৷ সেখানে ওয়াল গ্রাফিটি, প্রার্থীর হয়ে প্রেরকের প্রচার, কেন বামেদের সমর্থন করা হচ্ছে এই সবও পাঠাতে আহ্ববান জানানো হয়েছে৷ এমনকি ভোটের সময় প্রতিদিনের অভিজ্ঞতাও ন্যূনতম ১০০ শব্দের মধ্যে লিখতে বলা হয়েছে৷ প্রেরক না চাইলে তার নাম গোপন রাখা হবে বলেও রয়েছে প্রতিশ্রুতি৷

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের আকাশ ব্যবহার করতে না পারায় ক্ষতি হচ্ছে এয়ার ইন্ডিয়া’র

ইতিমধ্যেই বিভিন্ন সোশ্যাল মাধ্যমে বোটের পোলে ঝড় তুলছে বাম প্রার্থীরা৷ যা বাস্তবায়িত হলে তৃণমূলের কপালে দুঃখ রয়েছে৷ কিন্তু পাটিগণিতের নিয়ম মেনে তো নির্বাচন হয় না৷ উৎসাহি বাম নেতৃত্ব নিশ্চই বোঝেন সে কথা৷ তবে তাদের উদ্যোগে যে ‘ডিজিটাল দেওয়ালে’ ছন্দরস ধরা দেবে তা বলাই বাহুল্য৷