কলকাতা: এ যেন ঘরে ফেরারই সামিল। সবুজ-মেরুন জার্সি গায়ে এর আগে ২০১৭ মরশুমে আই লিগে খেলেছিলেন। এরপর কলকাতা ছেড়ে বেঙ্গালুরু এফসি। তারপর মুম্বই সিটি এফসি হয়ে ফের কলকাতায় ফিরলেন জাতীয় দলের লেফট-ব্যাক শুভাশিস বোস। বৃহস্পতিবার ২৪ বছর বয়সী এই ফুটবলারকে দীর্ঘমেয়াদী চুক্তিতে দলে নিল নয়া এন্টিটি হিসেবে আইএসএলে আত্মপ্রকাশ করতে চলা এটিকে-মোহনবাগান।

সাম্প্রতিক সময়ে প্রবীর দাস, জবি জাস্টিনের মতো গত মরশুমে খেলা ফুটবলারদের সঙ্গে যেমন চুক্তি বাড়িয়ে নিয়েছে এটিকে-মোহনবাগান। তেমনি দলে নিয়েছে মোহনবাগান অ্যাকাডেমি থেকে উঠে আসা তরুণ প্রতিশ্রুতিমান মিডফিল্ডার শেখ সাহিলকে। আবার একইসঙ্গে আপফ্রন্টে ফিজির রয় কৃষ্ণা কিংবা স্প্যানিশ উইঙ্গার এডু গার্সিয়ার মতো বিদেশিদের সঙ্গেও চুক্তি বাড়িয়ে নিয়েছে এটিকে-মোহনবাগান। এদিন দেশের প্রতিভাবান লেফট-ব্যাক শুভাশিসকে পাঁচ বছরের চুক্তিতে দলে নিয়ে আসন্ন মরশুমে নিজেদের শক্তি আরেকটু বাড়িয়ে নিল চ্যাম্পিয়নরা।

২০২৫ অবধি এটিকে-মোহনবাগানের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়ে খুশি শুভাশিসও। টুইটের মাধ্যমে নিজেই জানালেন সে কথা। শুভাশিস বৃহস্পতিবার এক টুইটে লিখেছেন, ‘হোমটাউনে ফেরার ব্যাপারে আমি ভীষণভাবে উৎসাহী। একইসঙ্গে নতুন চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতেও মুখিয়ে রয়েছি। নিজের সবটা উজাড় করে এটিকে-মোহনবাগানকে সাফল্য এনে দেওয়ার ব্যাপারে আমি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।’ মুম্বই সিটি এফসি’র জার্সি গায়ে গত দু’টি মরশুম স্মরণীয় হয়ে থাকবে শুভাশিসের জন্য। গত দু’মরশুমে মুম্বইয়ের ফ্র্যাঞ্চাইজি দলটির হয়ে ৩৪ ম্যাচ খেলা শুভাশিসের নামের পাশে একটি গোল রয়েছে।

২০১৮ দেশের জার্সি গায়ে ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপে চিনা-তাইপের বিরুদ্ধে অভিষেক হয়েছিল বাঙালি এই লেফট-ব্যাকের। মেন ইন ব্লু জার্সিতে এখনও অবধি ২৩টি আন্তর্জাতিক ম্যাচে ৪টি গোল করেছেন তিনি। ২০১৯ এএফসি এশিয়ান কাপে দলের হয়ে তিনটি ম্যাচেই মাঠে নেমেছিলেন তিনি। স্বাভাবিকভাবেই এই মুহূর্তে দেশের অন্যতম সেরা লেফট-ব্যাককে দলে নিয়ে এটিকে-মোহনবাগান যে অনেকটাই নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি করে নিল তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

গত সোমবার এক টুইটের মাধ্যমে শুভাশিসের ক্লাব ছাড়ার কথা ঘোষণা করেছিল মুম্বই সিটিএফসি। গত দু’টি মরশুমে ক্লাবে তাঁর অবদানের জন্য ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি শুভাশিসকে আগামীর জন্য শুভেচ্ছাও জানিয়েছিল মুম্বই ফ্র্যাঞ্চাইজিটি।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।