স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কৃষি বিলের বিরুদ্ধে সর্বসম্মত প্রস্তাব নেওয়ার জন্য বিধানসভার বিশেষ অধিবেশনের দাবি তুলল বাম এবং কংগ্রেস। এই দাবি জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি দিয়েছেন বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী এবং বিরোধী দলনেতা কংগ্রেসের আব্দুল মান্নান।

বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসের অভিযোগ, কৃষি বিলে কৃষকস্বার্থকে কর্পোরেট ব্যবসায়ীদের স্বার্থে জলাঞ্জলি দেওয়া হয়েছে, অত্যাবশ্যক পণ্য আইন সংশোধনের মধ্য দিয়ে মানুষের খাদ্যের অধিকার কেড়ে নেওয়া এবং শ্রম আইন সংস্কারের মধ্য দিয়ে শ্রমিকস্বার্থকে বিপন্ন করা হয়েছে।

সুজন চক্রবর্তী এবং আব্দুল মান্নান বলেন, ‘‘কেন্দ্রের ওই আইনগুলির বিরুদ্ধে আমাদের প্রস্তাব তৈরি আছে। আইনগুলি যে সব ক্ষেত্রের, সেগুলি রাজ্য অথবা যুগ্ম তালিকাভুক্ত। কেন্দ্রের অন্যায় আইন রাজ্যে আমরা প্রয়োগ করব না, এই মর্মে প্রস্তাব নিতে চাই। রাজ্য প্রস্তাব আনলে এবং তার মর্মার্থ এক থাকলে আমরা তাতেও সম্মত। আশা করব, রাজ্য আমাদের প্রস্তাবে সম্মত হওয়ার সাহস দেখাবে।’’

তাঁদের দাবি, রাজ্যসভায় সংখ্যালঘু হওয়া সত্ত্বেও কেন্দ্র যেভাবে বিল সেখানে পাশ করিয়েছে তা অসাংবিধানিক। রাজনৈতিক মহল মনে করছে, কৃষি বিল নিয়ে তৃণমূলের আন্দোলনের আন্তরিকতাকে জনগণের সামনে পরীক্ষায় ফেলার জন্যই তাদের এই কৌশল নিয়েছে বাম-কংগ্রেস।

কৃষি বিলের বিরোধিতায় পথে নেমে প্রতিবাদে শামিল হচ্ছে বাম এবং কংগ্রেস। দুই দলের নানা সংগঠন ইতিমধ্যেই কৃষি বিলের প্রতিবাদে আন্দোলনে নেমে পড়েছে। আজ, শুক্রবার ধর্মতলা থেকে শ্যামবাজার পর্যন্ত যে মিছিলের ডাক দিয়েছে শ্রমিক সংগঠনগুলি, সেই মিছিলে যোগ দিয়েছেন বামেরাও।

সংসদে পাশ হওয়া কৃষি বিলকে ‘কৃষকদের মৃত্যু পরোয়ানা’ বলে মন্তব্য করেছেন কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী। ওই বিলের বিরুদ্ধে দেশ জুড়ে আন্দোলনের পরিকল্পনা করেছে কংগ্রেস ও ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়ন। হাইকমান্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এরাজ্যেও বৃহত্তর আন্দোলনে নামছে কংগ্রেস। জেলা পর্যায় থেকে শুরু হচ্ছে আন্দোলন।

জানা গিয়েছে, ২ অক্টোবর মহাত্মা গান্ধী এবং লালবাহাদুর শাস্ত্রীর জন্মদিনে কংগ্রেসের তরফ থেকে কৃষক ও কৃষি শ্রমিক বাঁচাও দিবস পালন করা হবে। প্রত্যেক রাজ্যের জেলা সদরগুলিকে এই আন্দোলনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও স্বাক্ষর সংগ্রহ অভিযানও চালানো হবে। প্রায় ২ কোটি কৃষকদের স্বাক্ষর সংগ্রহ করে জনহরলাল নেহরুর জন্মদিন ১৪ নভেম্বর তুলে দেওয়া হবে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের হাতে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।