কলকাতা: বিধানসভা ভোটের ঠিক আগে বাম-কংগ্রেস জোটে জট। তাল কাটল মুখ্যমন্ত্রীর পদপ্রার্থী করে ভোটে লড়ার প্রস্তাবে। কংগ্রেসের একাংশের দাবি, অধীর চৌধুরীকেই বাংলায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করে নির্বাচনের লড়া উচিত বাম-কংগ্রেস জোটের। যদিও একাংশের কংগ্রেস নেতাদের এই দাবি উড়িয়েছেন বাম নেতৃত্ব।

বিধানসভা ভোট যতই এগোচ্ছে রাজ্যে রাজনৈতিক উত্তেজনার পারদ ততই চড়ছে। একুশের ভোটে বাংলা দখলে মরিয়া বিজেপি। অন্যদিকে, সাংগঠনিক ফাঁকফোকর মেরামত করে ফের রাজ্যে ক্ষমতায় থাকার ব্যাপারে আশাবাদী তৃণমূল। জেলায়-জেলায় চলছে জনসংযোগ বাড়ানোর কাজ। শাসকদলেরই একাংশ ব্যস্ত গত ৫ বছরের উন্নয়নের প্রচারের কাজে।

এরই পাশাপাশি ভোট ময়দানে রয়েছে বাম ও কংগ্রেস। জোট করে একুশের ভোটে লড়াই করবে বাম-কংগ্রেস। যদিও বিধানসভা ভিত্তিক আসনরফা এখনও চূড়ান্ত হয়নি। আলোচনা প্রথামিক পর্বে রয়েছে। এরই মধ্যে একুশের ভোটে বাম-কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

কোনওদিনই নির্দিষ্ট কাউকে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী বা ‘মুখ’ করে ভোটে লড়েনি বামেরা। সে জ্যোতি বসুই হোন বা বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। ভোটের আহগে মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার বলে কাউকে আগেভাগে ঘোষণা করে ভোটে লড়া বরাবরই না-পসন্দ বামেদের।

যদিও কংগ্রেসি ঘরানায় এ রেওয়াজ দীর্ঘদিনের। একুশের ভোটে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীকেই মুখ্যমন্ত্রী পদে মুখ করে ভোটে লড়া উচিত বাম-কংগ্রেস জোটের, এমনই মত রাজ্য কংগ্রেসের একাংশের। অধীর চৌধুরী লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা।

এরাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হয়ে লড়াইয়ের ক্ষেত্রে বাড়তি অ্যাডভান্টেজ রয়েছে ‘ডাকাবুকো’ অধীরের। এমনই মত কংগ্রেসের একাংশের। যদিও বিধান ভবনের একাংশের নেতাদের এই দাবি মানতে নারাজ আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের নেতারা।

জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই প্রদেশ কংগ্রেসের একাংশের নেতাদের এই দাবি নিয়ে বামেদের মধ্যেও জোরদার আলোচনা শুরু হয়েছে। সব বাম দলগুলিই বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ । বামেদের বড় শরিক সিপিআইএমও বিষয়টি একেবারেই ভালোভাবে নেয়নি।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।