নুর-সুলতান(কাজাখস্তান): ডেভিস কাপে নিজেরই রেকর্ড ভাঙলেন লিয়েন্ডার পেজ৷ শনিবার ডাবলসেও পাকিস্তানকে ধরাশায়ী করে ৩-০ এগিয়ে যায় ভারত৷ সেই সঙ্গে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বিতর্কিত টাই জিতে গেলে ভারতীয় দল৷

ডেভিস কাপে এদিন ৪৪তম ডাবলস জয় পান পেজ৷ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ডেভিস কাপে লিয়েন্ডারের পার্টনার ছিলেন অভিষেককারী জীবন নেদুনচেজিয়ান৷ তরুণ পার্টনার নিয়েই পাকিস্তানকে ৬-১, ৬-৩ হারান লিয়েন্ডার৷ মাত্র ৫৩ মিনিটে ম্যাচ জিতে নেয় লিয়েন্ডার-জীবন জুটি৷ শুক্রবার দু’টি সিঙ্গলসেই দাপটের সঙ্গে জিতেছিল ভারত৷ এদিন ডাবলসে লিয়েন্ডারের সামনে ছিলেন মহম্মদ শোয়েব ও আব্দুল রেহমান৷ এরা দু’জনেই শুক্রবার সিঙ্গলসে খেলেছিলেন৷

গত বছরই পেজ ডেভিস কাপে ডাবলসে সবচেয়ে বেশি ৪৩টি ম্যাচ জিতে রেকর্ড গড়েছিলেন৷ চিনের বিরুদ্ধে জিতে টপকে গিয়েছিলেন ইতালির নিকোলা পিয়েত্রানগেলিকে৷ কম ম্যাচ খেলে বেশি জয়ে পেয়েছিলেন লিয়েন্ডার৷ গত বছরই ৫৬টি টাইয়ের মধ্যে ৪৩টি-তে জয় পেয়েছিলেন তিনি৷ যেখানে ৬৬টি টাইয়ের মধ্যে ৪২টি জিতেছেন নিকোলা৷ এদিনের জয়ের ফলে ৫৭টি টাইয়ের মধ্যে ৪৪টি জিতে নিজের রেকর্ড নিজেই ভাঙেন ভারতীয় কিংবদন্তি৷

শুক্রবার রামকুমার রামানাথন ও সুমিত নাগাল দুই সিঙ্গলসে তাঁদের প্রতিদ্বন্দ্বীদের উড়িয়ে দেন৷ প্রথম সিঙ্গলসে মাত্র ৪২ মিনিটে প্রতিদ্বন্দ্বী ১৭ বছরের মহম্মদ শোয়েবকে ডাবল বাগেল করেন রামানাথন৷ এই ম্যাচে শোয়েবের সাফল্য বলতে ছিল দ্বিতীয় সেটের ষষ্ঠ গেমে ভারতীয় প্রতিদ্বন্দ্বীর বিরুদ্ধে দু’টি ডিউস পয়েন্ট৷

দ্বিতীয় সিঙ্গলসে সুমিত নাগাল তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী মহম্মদ রেহমানকে ৬-০, ৬-২ হারান৷ দ্বিতীয় সিঙ্গলস মাত্র ৬৪ মিনিটে জিতে নিয়েছিল ভারত৷ প্রথম গেমে কোনও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে না-পারলেও দ্বিতীয় গেমে অবশ্য দীর্ঘ র‌্যালিতে ভারতীয় প্রতিদ্বন্দ্বীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ফেরার চেষ্টা করেছিলেন রেহমান৷ কিন্তু আধিপত্য বজায় রেখেই স্ট্রেট সেটে ম্যাচ জিততে অসুবিধা হয়নি সুমিতের৷