কলকাতা: ইন্ডিয়ান অ্যারোজের সৌজন্যে বছর শেষটা শীর্ষে থেকেই শেষ করা গিয়েছে। উল্লেখ্য, ২৮ ডিসেম্বর ফতোরদা স্টেডিয়ামে চার্চিল ব্রাদার্সকে ২-১ গোলে হারিয়ে চলতি আই লিগের প্রথম জয় তুলে নেয় ইন্ডিয়ান অ্যারোজ। সেই সঙ্গে ইস্টবেঙ্গলকে লিগ শীর্ষে থেকে বছর শেষ করার সুযোগ করে দেয়।

সেই চার্চিল ব্রাদার্সের বিরুদ্ধেই নতুন বছরে প্রথম অ্যাসাইনমেন্ট আলেজান্দ্রো মেনেন্দেজ ব্রিগেডের সামনে। লিগ টেবিলে শীর্ষে ওঠার হাতছানি দু’দলের কাছেই। গত ম্যাচ হারলেও উইলিস প্লাজা নেতৃত্বাধীন গোয়ার দলটিকে হালকাভাবে নেওয়ার যে কোনও জায়গা নেই, সেটা বিলক্ষণ জানে লাল-হলুদ ব্রিগেড। গত মরশুমে গোয়ায় গিয়ে চার্চিলকে হারালেও ফিরতি লেগে যুবভারতীতে কাশিমের গোলে কোনক্রমে হার বাঁচিয়েছিল ইস্টবেঙ্গল। দু’টি ম্যাচেই গোল করেছিলেন প্লাজা।

তাই আপফ্রন্টে প্লাজাকে সামলাতে বিশেষ পরিকল্পনা যে থাকবে আলেজান্দ্রোর তা বলাই বাহুল্য। শুক্রবার সকালে যুবভারতীর রুদ্ধদ্বার প্র্যাকটিস গ্রাউন্ডে হয়তো প্লাজাকে আটকানোর বিশেষ ছক ঝালিয়ে নিলেন লাল-হলুদের স্প্যানিশ বস। এদিন সকালে অনুশীলন সেরেই গোয়ার উদ্দেশ্যে রওনা দিল টিম ইস্টবেঙ্গল। প্লাজা সিসেদের দৌড় থামাতে ব্লকার হিসেবে বড় দায়িত্ব থাকবে সেনেগালের কাশিম আইদারার উপর। আপফ্রন্টে ফিরছেন হাইমে কোলাডো। জুয়ান মেরার সঙ্গে তাঁর তালমিল ভরসা জোগাচ্ছে আলেজান্দ্রোকে। চোট সারিয়ে ফিট অধিনায়ক লাওলরিনডিকাও দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ায় সেটপিসের তীক্ষ্ণতা বাড়াতে আলেজান্দ্রো তাঁকে ব্যবহার করতেই পারেন।

সবমিলিয়ে বার্নার্ডো তাবারেসের দলকে সমীহ করলেও নিজের দল নিয়েও আশাবাদী স্প্যানিশ বস। বছরের শুরুতে তিন পয়েন্ট ছাড়া আর কিছুই ভাবছে না লাল-হলুদ। শনিবার ম্যাচ জিতলে ৫ ম্যাচ থেকে ১১ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলে শীর্ষেই অবস্থান করবেন আলেজান্দ্রোর ছেলেরা। অন্যথা শীর্ষস্থানটা ছিনিয়ে নেওয়ার দৌড়ে থাকবে পঞ্জাব এফসি কিংবা চার্চিল। ইস্টবেঙ্গল হারলে, পরদিন কাশ্মীরকে মোহনবাগান হারাতে পারলে লিগ টেবিলে লাল-হলুদকে টপকে যেতে পারে কিবু ভিকুনার দলও। সবমিলিয়ে সাবধানী ইস্টবেঙ্গল ফতোরদা থেকে তিন পয়েন্টের লক্ষ্যেই।