বেঙ্গালুরু: যুদ্ধক্ষেত্রের জন্য একেবারে প্রস্তুত ভারতের লাইট কমব্যাট এয়ারক্রাফট তেজস। বুধবার বায়ুসেনার Aero India শো-এর প্রথম দিনেই অপারেশনাল ক্লিয়ারেন্স দেওয়া হল তেজস মার্ক ১ বিমানকে।

এদিন বায়ুসেন প্রধান বিএস ধানোয়ার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে সেই ছাড়পত্রের সার্টিফিকেট। বিএস ধানোয়া জানিয়েছেন এই এয়ারক্রাফট ‘যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত।’

বায়ুসেনার সাম্প্রতিক প্রদশফনী ‘বায়ুশক্তি’ ও ২০১৮-র ‘গগনশক্তি’ ,হড়ায় নিজের দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছিল তেজস। এক প্রকৃত যোদ্ধার মত আচরণ করেছিল বলে উল্লেখ করেছেন ধানোয়া।

তিনি বলেন, ‘এটা একটা মাইলস্টোন।’ তেজস মার্ক ওয়ানের পর মার্ক-২ প্রয়োজন বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি। তেজসের মিসাইল রেঞ্জ, মাঝ আকাশে রিফুয়েলিং করার ক্ষমতা ও আকাশ থেকে মাটিতে বোমা নিক্ষেপ করার ক্ষমতা পরীক্ষা করেই এই ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

বায়ুসেনা ৫০,০০০ কোটি খরচে ৮৩টি তেজস যুক্ত করতে চায়।

আগেও বায়ুসেনা প্রধান বলেন, ‘পাকিস্তানে হাতে যদি জেএফ ১৭ থাকে, ভারতের হাতে তবে তেজস রয়েছে৷’ তাঁর মতে জেএফ ১৭ পাকিস্তানের বর্তমান হতে পারে৷ তবে তাকে টক্কর দেওয়ার জন্য তৈরি তেজস, ভারতের ভবিষ্যত৷ প্রায় সাড়ে ১৩ মিটার লম্বা আর ১২ টন ওজনের এই তেজস যুদ্ধবিমানগুলোর সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৩৫০ কিলোমিটার।

ভারতের নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি যুদ্ধবিমান ‘তেজস’ নি:সন্দেহে ভারতীয় বায়ুসেনার মুকুটে গুরুত্বপূর্ণ পালক৷ ফোর্থ জেনারেশন হালকা ওজনের এয়ারক্র্যাফট এটি। একাধিক দায়িত্ব পালনে সক্ষম। ভারতীয় বায়ুসেনায় মিগ ২১ এবং মিগ ২৭ বিমানের অভাব পূরণ করেছে তেজস।