অভিষেক কোলে: ফরম‍্যাট আলাদা হলেও আইপিএলকেই বিশ্বকাপের যথাযথ প্রস্তুতি মঞ্চ বলে মনে করেন ভিভিএস লক্ষ্মণ। ইডেনে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিরুদ্ধে আইপিএল ম্যাচের আগে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের মেন্টর লক্ষ্মণ জানান, আইপিএলের মতো বড় আসরে ভালো পারফর্ম করতে পারলে বাড়তি আত্মবিশ্বাস নিয়ে ক্রিকেটাররা বিশ্বকাপে যেতে পারবে। লক্ষ্মণ এও মনে করেন যে, আইপিএলে ক্রিকেটারদের ওয়ার্কলোডের দিকে যথাযথ নজর রাখা হয়।

লক্ষ্মণের কথায়, ‘আইপিএলের ফরম‍্যাট আলাদা হলেও এটা সাদা বলের টুর্নামেন্ট। এখানে সব ম্যাচ অত‍্যন্ত উত্তেজক হয়। বিশ্বকাপের আগে এর থেকে ভালো ম্যাচ প্র্যাকটিস আর কিই বা হতে পারে। আইপিএলে সফল হলে ক্রিকেটাররা বাড়তি আত্মবিশ্বাস নিয়ে বিশ্বকাপ খেলতে যেতে পারবে। সুতরাং, আইপিএলের মতো টুর্নামেন্ট বিশ্বকাপের প্রস্তুতিতে ওদের সাহায্য করবে নিশ্চিত।’

আরও পড়ুন: টানা পঞ্চমবার সাফ চ্যাম্পিয়ন ভারত

আইপিএলে ক্রিকেটারদের ওয়ার্কলোড প্রসঙ্গে লক্ষ্মণের মত, ‘সবাই পেশাদার ক্রিকেটার। সবাই যথেষ্ট বুদ্ধিমান। আইপিএলের মতো টুর্নামেন্টে শুধু খেলাই নয়, এক শহর থেকে অন্য শহরে ট্রাভেল করার ধকলও সহ্য করতে হয় ক্রিকেটারদের। ফ্রাঞ্চাইজিদের এদিকে নজর থাকে। ক্রিকেটারদের ফিটনেস লেভেল কিভাবে যথাযথ রাখা যায় সে বিষয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজিরা যথেষ্ট সচেতন। সুতরাং টুর্নামেন্টে এমনিতেই ক্রিকেটারদের ওয়ার্কলোডের দিকে নজর দেওয়া হয়। আমরা সবাই বিশ্বকাপের দিকে তাকিয়ে রয়েছি সবাই চাই ভারত বিশ্বকাপ জিতুক। আমার মনে হয় বিশ্বকাপের আগে আইপিএল খেলাটা ওদের কাছে প্লাস পয়েন্ট। কেননা, এখানে কোয়ালিটি প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে লড়াই চালাতে হয়।’

আরও পড়ুন: উয়েফার বড়সড় শাস্তির মুখে নেইমার

এক বছরের নির্বাসন পর্ব কাটিয়ে আইপিএলে ফেরা ডেভিড ওয়ার্নারকে নিয়ে রীতিমতো উচ্ছ্বসিত শোনাল ভিভিএস’কে। ওয়ার্নারের প্রসঙ্গ উঠতেই লক্ষ্মণ বলেন, ‘ওয়ার্নারকে অত্যন্ত ইতিবাচক দেখাচ্ছে। গতবছর কেপ টাউনে যেটা ঘটেছিল তা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। আমি নিশ্চিত ও সামনের দিকে তাকাতে চায়। এই মুহূর্তে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে মাঠে নামার জন্য মুখিয়ে রয়েছে ও। ওয়ার্নার আমাদের একজন মূল্যবান ক্রিকেটার। একজন দারুণ ক্যাপ্টেন হিসেবে শুধু নয়, ব্যাটসম্যান হিসেবেও সানরাইজার্সে ওর অবদান অনস্বীকার্য। এই মুহূর্তে ও ১০০ শতাংশ ফিট এবং আমি নিশ্চিত গোটা মরশুমে ও আমাদের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার হতে চলেছে।’

আরও পড়ুন: লারা-সচিনের সঙ্গে কোহলিকে একাসনে রাখলেন অজি কিংবদন্তি

অজি তারকাকে নিয়ে সানরাইজার্স মেন্টর আরও বলেন, ‘ফিটনেস নিয়ে প্রচুর পরিশ্রম করেছে ওয়ার্নার। প্রথম প্র্যাকটিস সেশন থেকেই ওকে যে রকম ছন্দে দেখাচ্ছে, তাতে সত্যিই আমি অবাক। প্র্যাকটিস ম্যাচগুলোতেও দারুণ ব্যাট করেছে ও।’

দ্বাদশ আইপিএলে নিজেদের প্রথম প্রতিপক্ষ কেকেআর প্রসঙ্গে সমীহ ঝড়ে পড়ল লক্ষ্মণের গলায়। তিনি বলেন, ‘এতে কোন সন্দেহ নেই যে কেকেআর অসাধারণ দল। আইপিএলের অন্যতম ধারাবাহিক দল ওরা। বিশেষ করে ইডেন গার্ডেন্সে খেলা হলে ওদের বাড়তি গুরুত্ব দিতেই হয়। ওদের বোলিং বিভাগ, বিশেষ করে স্পিনাররা দারুন। তবে দল হিসাবে আমরা নিজেদের শক্তির উপর জোর দিতে চাই। নিজেদের খেলাতেই নজর দিতে চাই। আইপিএলে সব দলই সমীহ করার মতো। সব দলেই ম্যাচ উইনার রয়েছে। তাই প্রতিপক্ষকে নিয়ে অযথা খুব বেশি ভাবনা চিন্তা করা উচিত নয়। আমরা ঠিক সেটাই করতে চাই।’

আরও পড়ুন: আইপিএল শুরুর আগেই বিতর্কে বুমরাহ

কলকাতার দুই ঘরের ছেলে ঋদ্ধিমান সাহা ও শ্রীবৎস গোস্বামীকে নিয়েও আশাবাদী ভেরি ভেরি স্পেশাল লক্ষ্মণ। দলের দুই উইকেট-কিপার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ঋদ্ধিমানকে দীর্ঘদিন পর চোট সারিয়ে মাঠে ফিরতে দেখে ভালো লাগছে। প্র্যাকটিস ম্যাচগুলোতে ও ভালো ব্যাট করেছে। মুস্তাক আলি টি-২০’তেও ফর্মে ছিল। শ্রীবৎস টি-২০’তে দারুণ ব্যাট করেছে। সাহা আগেও কেকেআরের বিরুদ্ধে দারুণ পারফরম‍্যান্স করে দেখিয়েছে। তাছাড়া ওর মতো দলের প্রতি দায়বদ্ধ ক্রিকেটার আমি খুব কমই দেখেছি।’

সবশেষে ইডেনের বাইশগজকে দরাজ সার্টিফিকেট দিলেন লক্ষ্মণ। পিচ প্রসঙ্গে তাঁর মত, ‘পিচ দেখে দারুণ মনে হচ্ছে। গাঢ় সবুজ আউট ফিল্ড। পিচে ঘাস রয়েছে, যা পেসারদের সাহায্য করবে। বিকালে ম্যাচ হওয়ায় স্পিনাররাও সাহায্য পাবে। পাশাপাশি শক্ত উইকেটে বাউন্স রয়েছে। ব্যাটসম্যানরাও যেটাকে কাজে লাগিয়ে রান তুলতে পারবে। সব মিলিয়ে দারুণ ক্রিকেটিং উইকেট। আমি নিশ্চিত হাই স্কোরিং ম্যাচ হবে।’