কলকাতাঃ  বাংলায় ভোটের দামামা! আর ভোটের আগে সংগঠনকে ঢেলে সাজাতে নেমে পড়েছে সব রাজনৈতিক দলই। চলছে ঘর ভাঙানোর খেলা। এই পরিস্থিতি রাজনীতিতে ফের অন্য ছবি! একই মঞ্চে দুই প্রাক্তন সাংসদ। একদিকে কুণাল ঘোষ। আর তাঁর পাশেই হলদিয়ার প্রাক্তন সিপিএম সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ।

আজ বৃহস্পতিবার হলদিয়ার দূর্গাচকে জি ব্লকে ক্ষুদিরাম বসুর ১৩১ তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আর সেই মঞ্চেই দেখা গেল কুণাল ঘোষ এবং প্রাক্তন সিপিএম সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ। একেবারে দুই মেরুর দুই সাংসদ একই মঞ্চে! এই ছবি দেখে অনেকেই চমকে ওঠেন।

আর সেই মঞ্চ আয়োজন করেছেন নন্দীগ্রাম আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত মধুসূদন মন্ডল ওরফে “নারায়ণ”।

শুভেন্দুকে নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে জল্পনার পারদ বেড়েই চলেছে। তখন তৃণমূলের মুখপাত্র প্রাক্তন তৃণমূলের সাংসদ কুণাল ঘোষের সাথে একই মঞ্চে সিপিএমের প্রাক্তন সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ। সিপিএম দল ছাড়ার পর একের পর এক রাজনৈতিক দলে সামিল হয়েছেন।

তবে পারেনি শাসক দল তৃণমূলের ঘরে ঢুকতে। শুভেন্দুর অবর্তমানে কি তৃণমূলে প্রবেশ করবেন? যা নিয়ে জল্পনা বাড়ছে। কুণাল ও লক্ষ্মণ দুজনেরই বক্তব্য একটি অরাজনৈতিক সভায় ডাকা হয়েছে তাই এসেছি।

তবে তৃণমূলের যোগদান করা বা রাজনৈতিক কোন কথা বলার সভা নয় এটা। এদিন লক্ষ্মণ চুপ থেকে শুধু স্বাধীনতা সংগ্রামীদের কথা তার ভাষণে তুলে ধরলেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।