মুম্বই: শনিবার অনুষ্ঠিত ‘দাদাসাহেব ফালকে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব ২০২১’ অনুষ্ঠানে ক্রিটিক বেস্ট আওয়ার্ড সম্মানে ভূষিত করা হল প্রয়াত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতকে। সমালোচকদের মতে সেরা ‘অভিনেতা’ নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।

দাদাসাহেব ফালকে আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভালের অফিশিয়াল ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট-এ এই খবর প্রকাশিত হয়। যেভাবে প্রয়াত অভিনেতা তাঁর কাজের প্রতি অসামান্য দায়বদ্ধতা ও ভালোবাসার মাধ্যমে সাফল্য অর্জন করেছেন,তাকে সম্মান জানিয়েই এই প্রয়াস। দাদাসাহেব ফালকে আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভালের অফিশিয়াল ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট এর লেখা , ‘Celebrating the dedication you’ve shown on the way to this achievement.’

ছোট পর্দা দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও খুব কম সময় অসাধারণ কর্ম দক্ষতার জন্যই খুব দ্রুত সুশান্ত সিং রাজপুত,দর্শকদের মনের মণিকোঠায় রাজ করেছেন।

২০০৮ সালে টিভি সিরিয়াল ‘কিস দেশ মে হ্যায় মেরা দিল’ দিয়ে অভিনয়ের কেরিয়ার শুরু করেছিলেন সুশান্ত। সুশান্ত এর প্রাক্তন বান্ধবী আঙ্কিতা লোখান্ডের বিপরীতে জি টিভির ‘পবিত্র রিশতা’ সিরিয়ালে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেন সুশান্ত। এর পরেই হিন্দি চলচ্চিত্র জগতে নিজের জায়গা তৈরী করতে উদ্যত হন তিনি।

২০১৩ সালে, নবাগত পরিচালক অভিষেক কাপুরের পরিচালনায় ‘কাই পো চে’ দিয়ে তিনি বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন। অভিনেতা রাজকুমার রাও ও অমিত সাধ -ও এই সিনেমাতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। চেতন ভগতের উপন্যাস থ্রি মিস্টেকস অফ লাইফ অবলম্বনে এটি ছিল তিন বন্ধুর গল্প। তারপর ‘শুধ দেশি রোমান্স’, রাজ্ কুমার হিরানির ‘পিকে’,ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ বক্সী ,এম এস ধোনি, রাবতা , কেদারনাথ, শোন্চড়িয়া, ছিছোরে, ড্রাইভ ওয়েব ফিল্মে তাঁর অভিনয় ছিল নজর কাড়া। রাজপুতের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মুকেশ ছাব্রা পরিচালিত ‘দিল বেচারা সুশান্ত সিং রাজপুতের শেষ ছবি। যা মুক্তি পায় তাঁর মৃত্যুর পরে। প্রয়াত অভিনেতাকে শেষবার সঞ্জনা সংঘির বিপরীতে দিল বেচারাতে দেখা গিয়েছিল।

গত ১৪ই জুন বান্দ্রার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে সুশান্তের ঝুলন্ত মৃতদেহ পাওয়া যায়। প্রাথমিক ভাবে জানা যায় দীর্ঘদিন ধরে অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। তাই আত্মহত্যার পথ বেঁচে নিয়েছিলেন অভিনেতা। সুশান্তের পরিবার, তার বাবা এবং বোনরা সহ, এই যুক্তি মানতে চাননি। এবং সুশান্তের পরিবার তার প্রাক্তন বান্ধবী এবং অভিনেতা রিয়া চক্রবর্তী এবং তার ভাই কৌশিক চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে পাটনা আদালতে এফআইআর দায়ের করেছিল।

যাই হোক,সুশান্তকে এই সম্মান দেওয়ায় খুশি তাঁর অনুরাগীরা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।