মুম্বই : আগের থেকে এখন অনেকটাই স্থিতিশীল সুরসম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকর। কিংবদন্তী শিল্পীর পরিবারেরই এক সদস্য সংবাদমাধ্য়মের কাছে জানিয়েছেন। এমনকী খুব শীঘ্রই তাঁকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার কথাও ভাবা হচ্ছে বলে জানান তিনি। ‌

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্য়মের কাছে লতা মঙ্গেশকরের পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, লতাদি এখন স্থিতিশীল এবং অনেকটাই ভালো আছেন। আপনাদের প্রার্থনার জন্য অনেক ধন্যবাদ। আমরা অপেক্ষা করছি, যাতে উনি আরও তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে ওঠেন এবং ওনাকে বাড়ি নিয়ে যেতে পারি।

সঙ্কটজনক অবস্থায় রবিবার গভীর রাতে মুম্বইয়ের ব্রিজক্যান্ডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় লতা মঙ্গেশকরকে। মূলত বার্ধক্যজনিত সমস্যা এবং নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত হয়ে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সোমবার দুপুরে এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই তাঁর অনুরাগীদের মধ্যে তীব্র আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। হাসপাতালের বাইরে জড়ো হতে থাকেন অসংখ্য তাঁর অনুরাগী।

রবিবার গভীর রাতে হঠাৎ করেই শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ব্রিজক্যান্ডি হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয় তাঁকে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তিনি নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত। তবে এই মুহূর্তে তাঁর অবস্থা অনেকটাই স্থিতিশীল।

প্রসঙ্গত, ২৮ সেপ্টেম্বর, ১৯২৯ সালে জন্ম হয় সুরসম্রাজ্ঞীর। তিনি ১০০০ এর বেশি ভারতীয় ছবিতে গান করেছেন। এছাড়া ভারতের ৩৬টি আঞ্চলিক ভাষাতে ও বিদেশি ভাষায় গান গেয়ে রেকর্ড তৈরি করেছেন তিনি। লতা মঙ্গেশকরের আরোগ্য কামনায় তাঁর অনুরাগীরা এখনও প্রার্থনা করে চলেছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।