স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: শনিবার ছত্তিশগড়ের বিজপুরে মাওবাদী নকশাল হামলা মৃত্যু হয় চারজন সিআরপিএফ জওয়ানের। ছয় জন সিআরপিএফ জওয়ান নিয়ে মাইনবিস্ফোরক রোধক একটি গাড়ি টহল দিচ্ছিল৷ তখনউ বিস্ফোরণ ঘটায় মাওবাদীরা৷

ঘটনাস্থলে প্রান হারান চারজন জওয়ান৷ তারমধ্যে ছিলেন মুর্শিদাবাদের সাগরদীঘির মতিউর রহমানও। শনিবার রাতেই এই মৃত্যু সংবাদ পান শহিদ জওয়ানের পরিবার। সংবাদ পাওয়ার পর থেকেই শোকের ছায়া নেমে আসে পরিবার ও প্রতিবেশীদের মধ্যে।

রবিবার সকাল হতেই শহিদ জওয়ানের পরিবারকে সমবেদনা জানাতে হাজির হন বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি৷ পরিবারের সাথে দেখা করেন জঙ্গিপুরের সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়, রাজ্যের শ্রম প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন, বিধায়ক সুব্রত সাহা, জেলা পরিষদের সভাধিপতি মোশারফ হোসেন সহ আরও অনেকে।

রবিবার সন্ধ্যায় শহিদ জওয়ান মতিউর রহমানের কফিন বন্দী নিথর দেহ পৌঁছয় সাগরদীঘির বোখারা দক্ষিণপাড়া গ্রামে বাড়িতে। দেহ আসতেই কান্নায় ভেঙে পড়েন পরিবারের সদস্যরা। শেষ দেখা দেখতে ভীড় জমান বহু মানুষ। এদিন রাতেই গান স্যালুটের মধ্যে দিয়ে নিজস্ব গ্রামে মাটিতে শেষশ্রদ্ধা জানানো হয় মাও হানায় শহিদ জওয়ান মতিউর রহমানকে।

এদিন তার মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেন সিএরপিএফের উচ্চ পদস্থ আধিকারিক ও জওয়ানেরা। চোখের জলে বিদায় জানানো হল শহিদ মতিউর রহমানকে।