স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: কেরলে বেড়াতে গিয়ে পথদুর্ঘটনায় মৃত তিন বোনের মধ্যে দুই বোনের দেহ সোমবার রাতেই ফিরল বনগাঁয়l জানা গিয়েছে, মৃত তিন বোনের মধ্যে যে দুই বোনের দেহ সোমবার রাতে কলকাতায় এসেছে তাঁদের নাম, শোভা বিশ্বাস ও মিতা বর্মণ। এছাড়াও অপর এক বোন গীতা রায়ের দেহ পাঠানো হয়েছে তার মুম্বইয়ের বাড়িতে। সূত্রের খবর, চলতি মাসের ১৫ তারিখ কেরল বেড়াতে গিয়েছিল আদতে বনগাঁর বাসিন্দা পাঁচ বোনের একটি দল।

আর সেখানে গিয়েই ১৭ তারিখ তাদের গাড়িটি পথ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে বলে জানা গিয়েছিল। ওই পথ দুর্ঘটনায় পাঁচ বোনের মধ্যে ঘটনাস্থলেই তিন বোনের মৃত্যু হয়। বাকি দুই বোন এখনও কেরলের হাসপাতালে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন।

জানা গিয়েছে,কেরলে ঘুরতে গিয়ে পথদুর্ঘটনায় মৃত্যু হওয়া তিন বোনের মৃতদেহ ফেরাতে চলতি সপ্তাহেই উদ্যোগী হয়েছিল রাজ্য সরকারl সেইমত রাজ্যসরকার এবং কেরল সরকারের সহযোগিতায় সোমবার রাতে বনগাঁর বাড়িতে মৃত দুই বোনের দেহ পৌঁছায়। সূত্রের খবর, মৃতদেহ বাড়িতে পৌঁছাতেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে পরিবারের সদস্যরাl এদিকে রাজ্য সরকারের সহযোগিতা এবং তৎপরতায় দ্রুত মৃতদেহ বাড়িতে ফেরানো সম্ভব হয়েছে বলে জানান মৃতের পরিবারের লোকেরা।

প্রসঙ্গত, চলতি মাসে কেরালায় বেড়াতে গিয়ে পথ দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা তথা বাঙালী পর্যটক শোভা বিশ্বাস,মিতা বর্মন ও গীতা রায়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তত্ত্বাবধানে কেরল থেকে দ্রতু তাদের মৃতদেহ কলকাতায় নিয়ে আসা হয় ও তাদের পরিবারের আত্মীয়দের হাতে দেহ তুলে দেওয়া হয়। যদিও, এই দুর্ঘটনায় জখম অপর দুইবোন লক্ষ্মী বিশ্বাস এবং কাকলী ভদ্র বর্তমানে কেরালা হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন রয়েছে। জানা গিয়েছে তাদের দুজনের জন্যও উন্নতমানের চিকিৎসার সমস্ত খরচ এর দায়িত্ব নিয়েছে রাজ্য সরকার। এদিকে মৃত বাঙালি পর্যটকদের পরিবারের পাশে রাজ্য সরকার দাঁড়ানোয় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা রাজ্য সরকারের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন মৃতদের পরিবারের সদস্যরা।