স্টাফ রিপোর্টার, জয়নগর: বাবার সম্পত্তি ভাগাভাগী নিয়ে দুই ভাইয়ের মধ্যে বেশ কিছুদিন ধরে গন্ডগোল চলছিলো। সেই গন্ডগোল এতটাই চরমে ওঠে যে তা মেটাতে এলাকার মাতব্বরদের সালিশী সভা ডাকতে হয়।

আর সেই সালিশী সভায় সকলের সামনেই দাদার উপর চড়াও হয়ে মারধরের পাশাপাশি তার আঙ্গুল কামড়ে কেটে নেয় ভাই। স্বামীকে বাঁচাতে স্ত্রী এগিয়ে এলে তাকে ও বেধড়ক মার খেতে হয় দেওরের হাতে।

ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিন ২৪ পরগনার জয়নগর থানার অন্তর্গত গড়দেওয়ানী গ্রাম পঞ্চায়েতের চুনারপুকুর গ্রামেI এই ঘটনায় জয়নগর থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

এই গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল অদুত ও আব্দুল আলিমের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই পৈতৃক সম্পত্তির ভাগাভাগি নিয়ে বিবাদ ছিলো। ঘটনার জেরে মাঝে মধ্যেই দুই ভাইএর পরিবারের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় ও হতো।

এই নিয়ে গ্রামের মধ্যে দুই ভাইয়ের বিবাদ চরম পর্যায়ে পৌঁছালে, স্থানীয় মসজিদে দুই পক্ষকে নিয়ে বুধবার সালিসী সভায় বসেন ঐ এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য সহ এলাকার কয়েকজন মাতব্বর মানুষরা।

অভিযোগ উঠেছে, সালিশী সভা চলাকালীন দুই ভাইয়ের মধ্যে বচসা চলতে চলতে হঠাৎই ছোট ভাই আব্দুল আলিম তার দাদা আব্দুল অদুতের উপর ঝাঁপিয়ে পরে এবং দাদা আঙ্গুল তুলে তাকে শাসিয়ে ছিলো বলে সে তার দাদার আঙ্গুল কামড়ে কেটে দেয়। এবং সেই সময় তার অন্তসত্বা বৌদি স্বামীকে বাঁচাতে গেলে তাকে ও মারধোর করে আব্দুল আলিম ও তার অনুগামীরা।

এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। ভাইয়ের হাতে আক্রান্ত দাদা বৌদিকে গুরুতর জখম অবস্থায় নিয়ে প্রতিবেশীরা প্রথমে নিমপীঠ শ্রীরামকৃষ্ণ গ্রামীন হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয় মানুষজন এবং সেখান থেকে জয়নগর থানায় রাতেই নিজের ভাইয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে আব্দুল অদূতের পরিবার। অভিযোগের ভিত্তিতে জয়নগর থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। যদিও ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত আব্দুল আলিমI