স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: পোল্ট্রী ফার্মের হঠাৎ করে শয়ে শয়ে মুরগির মৃত্যু। আর এই ঘটনায় গ্রামে ছড়িয়েছে আতঙ্ক। ঘটনাটি ঘটেছে মালদহ থানার মাধাইপুর ডাপে। পাশাপাশি করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় এবার সরাসরি পথে নামল প্রশাসন। বন্ধ করা হয়েছে জেলার প্রতিটি শপিং মল। বাজারগুলিতে যাতে অতিরিক্ত ভিড় না হয় সেদিকেও বাড়তি নজরদারি শুরু করেছে প্রশাসন। এখনও পর্যন্ত নতুন করে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে রোগীর সংখ্যা বাড়েনি।

বুধবার জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে,শহরের বিভিন্ন জায়গায় ও বিভিন্ন ওষুধের দোকানে যান প্রশাসনের আধিকারিকরা। সেখানে মাস্ক ও স্যানিটাইজার নিয়ে যাতে কালোবাজারি না হয় সেই বিষয়েও প্রচার চালানো হয় পুলিশের পক্ষ থেকে। যদিও, অভিযোগ উঠছে বেশ কিছু জায়গায় মাক্সের কালোবাজারি চলছে। পাশাপাশি ভিন রাজ্য থেকে যেসব শ্রমিকরা ফিরছেন, তাদের ওপর বিশেষ নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

ইতিমধ্যেই প্রশাসনের পক্ষ থেকে, আদিনা ডিয়ার পার্ক ও গৌড়া আদিনার ঐতিহাসিক স্থানগুলিতে পর্যটকদের প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। সীমান্ত সম্পূর্ণ সিল করে দেওয়া হয়েছে। জেলার বিভিন্ন জায়গায় যে ধাবা গুলিতে ভিন রাজ্য থেকে আসা লরি ড্রাইভাররা খাওয়া দাওয়া করেন সেখানেও যাতে মাস্ক ব্যবহার করা হয় এই বিষয়েও নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। বিশেষ নজরদারি চলছে ইংরেজবাজার পুরসভার পক্ষ থেকেও।

অন্যদিকে, পুরাতন মালদহের মাধাইপুরে একটি পোল্ট্রি ফার্মের ৩০০টিরও বেশী মুরগির মৃত্যুর ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। এখনও ওই ফার্মের মধ্যে মৃত মুরগি পড়ে রয়েছে। যদিও এই মুরগির মৃত্যু করোনা ভাইরাসের জেরে হয়েছে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা মাধব রাও বলেন,করোনা ভাইরাসের জেরে এই ঘটনা ঘটতে পারে। আমরা আতঙ্কে রয়েছি। এখান থেকে ভাইরাস ছড়াতে পারে।

পোল্ট্রী ফার্মের মালিক হুমায়ন সাবির জানান, সমস্ত বিষয়টি কোম্পানীকে জানানো হয়েছে। তারা নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে গেছে।
ব্লক প্রানী সম্পদ আধিকারিক খোকন ঘড়াই বলেন,”এই বিষয়ে তাদের জানা নেই। মুরগীর দাম না পেয়ে পোলট্রী ফার্ম গুলি পরিস্কার না হওয়া মিথেন গ্যাসের কারনে ঘটতে পারে। আমরা সমস্ত ঘটনা তদন্ত করে দেখবো।”

জেলাশাসক রাজর্ষী মিত্র বলেন, ”লাগাতার নজরদারি চালাচ্ছি। স্বাস্থ্য দফতর ও পুলিশকে ও বিশেষ নজরদারি চালানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। করোনা নিয়ে নতুন করে গুজব ছড়ানোর চেষ্টা হলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”