ফাইল ছবি

কলকাতা:  রাজ্য জুড়ে বিক্ষোভের ছবি। জায়গায় জায়গায় ট্রেনে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার থেকেই শুরু হয়েছে বিক্ষোভ। শনিবার আরও তীব্র আকার নিয়েছে সেই বিক্ষোভ। এদিন সকালে একটি ভিডিও-তে শান্তি বজায় রাখার আর্জি জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। বিকেলে ফের একটি প্রেস বিবৃতি দিয়ে শান্তিরক্ষার আবেদন জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন বিকেলে একটি বিবৃত দিয়ে তিনি বলেছেন, থানা, রেল, এয়ারপোর্ট, পোস্ট অফিস, সরকারি অফিস- এগুলি সবই সরকারি সম্পত্তি। এগুলি নষ্ট করলে আইন অনুযায়ী, কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মমতা বলেন, ‘আমিও নাগরিকত্ব বিল ও এনআরসি-র বিরোধী কিন্তু কোনও হিংসা ছড়িয়ে বিরোধিতা করা উচিৎ নয়।’ গণতন্ত্র মেনে সিএবি ও এনআরসি-র বিরোধিতা করার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘কিছু রাজনৈতিক দল ধর্মীয় বিশ্বাসের ভিত্তিতে আর সাম্প্রদায়িকতার উদ্দেশে চারিদিকে হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করছে। তাদের ফাঁদে পা দেবেন না। সবার কাছে আমার আনুরোধ শান্তি বজায় রাখুন।’

বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে আগেই আর্জি জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার একটি ভিডিও পোস্ট করে এই আর্জি জানিয়েছেন তিনি। কিন্তু খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আবেদনকে কর্নপাত করছেন না আবেদনকারীরা। দফায় দফায় উত্তেজনায় উত্তপ্ত হয়ে উঠছে রাজ্য। বিশেষ করে মুর্শিদাবাদে এর প্রভাব ব্যাপক। ফের নতুন করে ট্রেনে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার খবর আসে মুর্শিদাবাদ থেকে। লালগোলা স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা পাঁচটি ট্রেনে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে।

শুধু তাই নয়, মুর্শিদাবাদের ইসলামপুরে তৃণমূল নেতার বাড়ি ও গাড়িতে তাণ্ডব চালিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। মিছিল করে ফেরার পথে আচমকাই ওই নেতার বাড়িতে হামলা করে আন্দোলনকারীরা। ব্যাপক ভাঙচুর করা হয় তার গাড়িতে, এমনটাই অভিযোগ। শুধু তাই নয়, লালগোলা থানার পণ্ডিতপুরে টায়ার পুড়িয়ে বিক্ষোভ দেখান কয়েকজন। এরপর লালগোলা বাজারে বিক্ষোভ দেখায় তারা। পোড়ানো হয় পিডব্লুডি অফিসও। লালগোলা স্টেশনেও লাগিয়ে দেওয়া আগুন। কৃষ্ণপুর স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রেনে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়।

অন্যদিকে হাওড়ার নলপুরে রেল লাইনে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখানো হচ্ছে বলে শেষ পাওয়া খবর জানা গিয়েছে।

উল্লেখ্য, নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে এদিন সকাল থেকে অগ্নিগর্ভ কোনা এক্সপ্রেসওয়ে, মুর্শিদাবাদ, দক্ষিণ ২৪ পরগনা-সহ বিভিন্ন এলাকায়। একের পর এক জ্বলছে গাড়ি। পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে গিয়ে আক্রান্ত হতে হয় খোদ পুলিশ আধিকারিকদের। কার্যত স্তব্ধ জনজীবন।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I