কলকাতা: ভোটের মুখে রাজ্যে গরু ও কয়লা পাচারকাণ্ডে তদন্তের গতি আরও বাড়াল সিবিআই। এবার গরু-কয়লা পাচারকাণ্ডে ফেরার অনুপ মাজি ওরফে লালার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার প্রক্রিয়া শুরু করল কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা।

রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় লালার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বারবার সমনের পরেও এখনও সিবিআই দফতরে হাজিরা দেয়নি লালা। সম্ভবত এবার লালাকে ফেরার ঘোষণার মুখে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

রাজ্যে বিধানসভা ভোটের মুখে গরু ও কয়লা পাচারকাণ্ডে তদন্তে গতি বাড়াল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। কয়েকমাস আগে থেকেই রাজ্যজুড়ে গরু ও কয়লাপাচার কাণ্ডে তদন্ত শুরু করে সিবিআই। শহর কলকাতার পাশাপাশি জেলাগুলিতেও তল্লাশি চালান গোয়েন্দারা।

কয়লা পাচারকাণ্ডে মূল অভিযুক্ত অনুপ মাঝি ওরফে লালা। অভিযোগ, কয়লা পাচার করে কোটি-কোটি টাকা তুলেছে লালা। অভিযোগ, লালাকে একাজে সহযোগিতা করেছেন শাসকদলের বেশ কয়েকজন নেতা।

সিবিআই দফতরে হাজিরা দিতে বলা হয় লালাকে। তবে সিবিআই দফতরে হাজিরা দেয়নি লালা। এবার লালার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার প্রক্রিযা শুরু করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। এদিকে, বৃহস্পতিবারই কয়লাকাণ্ডে অভিযুক্ত লালাকে ফেরার বলে ঘোষণা করেছে আদালত।

অন্যদিকে, গরু ও কয়লাপাচার কাণ্ডে বিনয় মিশ্রের ভাই বিকাশ মিশ্রকে ইতিমধ্যেই নোটিশ দিয়েছে সিবিআই। কয়লা ও গরু পাচারকাণ্ডে আগামী ১৫ ও ১৬ জানুয়ারি তাকে নিজাম প্যালেসে তলব করা হয়েছে। বিনয়ের উপর চাপ বাড়াতেই তদন্তকারীদের এই কৌশল বলে মনে করা হচ্ছে৷

বিধানসভা ভোটের মুখে গরু ও কয়লা পাচার কান্ড নিয়ে নড়েচড়ে বসেছে সিবিআই৷ ইতিমধ্যেই কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে কেন্দ্রীয় এই তদন্তকারী সংস্থা৷ সূত্রের খবর,কয়লা পাচারে অভিযুক্ত বিনয় মিশ্রকে ৪ জানুয়ারি নিজাম প্যালেসের সিবিআই দফতরে হাজিরা দেওয়ার জন্য নোটিস পাঠিয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (সিবিআই)।

তিনি গরহাজির থাকায় আগামী ১২ জানুযারি ফের সিবিআই দফতরে তলব করা হয়েছিল তাকে। এবারও তিনি গরহাজির থাকায় তাঁর ভাই বিকাশ মিশ্রকে নোটিশ দেয় সিবিআই।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।