বাসুদেব ঘোষ, সিউড়ি: জেলার মহম্মদ বাজারের খড়িয়া গ্রামে লক্ষ্মী মন্দিরে লক্ষ্মীদেবী পূজিত হয়ে আসছেন ৯০০ বছর ধরে। বুধবার কোজাগরী লক্ষ্মী পুজো। আর সেই উপলক্ষে মহা ধুমধাম করে মহম্মদ বাজার ব্লকের খড়িয়া গ্রামের মণ্ডল পরিবার মেতে উঠেছে কোজাগরী লক্ষ্মী পুজোয়৷

পরিবার সূত্রে জানা যায়, এই গ্রামের লক্ষ্মী মন্দিরটি প্রায় ৯০০ বছরের পুরনো। মণ্ডল পরিবারের সপু মণ্ডল এই পুজোর প্রচলন করেন। পোড়ামাটির টেরাকোটার কাজে সজ্জিত এই প্রাচীন লক্ষ্মী মন্দির। মন্দিরের গায়ে টেরাকোটার রাম রাবণের যুদ্ধ, জগন্নাথ দেব, দুর্গার দশাবতার, শিবের নানা ভঙ্গিমার সঙ্গে নানা ধরনের আলপনার কাজের নিদর্শন রয়েছে৷ এই অপূর্ব টেরাকোটার কাজ আজও মুগ্ধ করে দর্শকদের।

তবে বর্তমানে বয়সের ভারে জীর্ণ হয়ে পড়েছে মন্দিরটি৷ মন্দিরের ছাদটিরও প্রায় ভগ্ন দশা৷ যদিও দু’বছর আগে মন্দিরটি পুনরায় সংস্কার করে সুন্দর ভাবে রং করা হয়েছে। বর্তমানে এই পুজোর দায়িত্বে আছেন কাশীনাথ মণ্ডল এবং তার ভাইপো বিপিনচন্দ্র মণ্ডল।

দুই শতক জায়গার উপর এই মন্দিরটি নির্মিত হয়েছিল। পরিবারের সদস্য কাশীনাথ মণ্ডল বলেন, ‘‘আগে সোনার লক্ষ্মী বিগ্রহ ছিল৷ সেটি চুরি হয়ে যাওয়ায় বর্তমানে চিনামাটির বিগ্রহ এনে নিত‍্য পুজো হয়৷ কোজাগরী লক্ষ্মী পুজোর দিন বড় করে পুজো করা হয়। আজকের দিনে মা লক্ষ্মীদেবীকে নারকেল নাড়ু ,আখ, আঁকুড়, সিন্নি আর খিচুড়ি ভোগ নিবেদন করা হয়।’’

অন্যদিকে এই পরিবারেই আরেক সদস্য কাবেরী মণ্ডল বলেন, ‘‘পূর্ব-পুরুষেরা এই পুজো করে আসছেন৷ তাই সেই রীতি মেনেই প্রতি বছর এই পুজো করা হয়৷’’