কলম্বো: ‘এ’ টিম, ‘বি’ টিম, অথবা দ্বিতীয় সারির দল, যাই বলা হোক না কেন, শ্রীলঙ্কা স্কোয়াডের প্রকৃত স্বরূপ বোঝাতে তা বাড়াবাড়ি মনে হবে। দুটি সীমিত ওভারের সিরিজের জন্য যে দল নিয়ে পাকিস্তান সফরে উড়ে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা, তাকে কার্যত ক্লাব স্তরের দল বলাই শ্রেয়।

নিরাপত্তাজনিত কারণে পাকিস্তানে খেলতে যেতে রাজি হননি শ্রীলঙ্কার প্রথম সারির ক্রিকেটাররা। ওয়ান ডে অধিনায়ক করুনারত্নে ও টি-২০ দলনায়ক মালিঙ্গা-সহ শ্রীলঙ্কার ১০ জন তারকা ক্রিকেটার পাক সফর থেকে নিজেদের সরিয়ে নিয়েছেন। এই অবস্থায় হাতে অবশিষ্ট ক্রিকেটারদের পুল থেকে স্কোয়াড বেছে নেওয়া ছাড়া উপায় ছিল না শ্রীলঙ্কার নির্বাচকদের সামনে।

একসঙ্গে ১০ জন সিনিয়র ক্রিকেটারের অনুপস্থিতিতে তরুণদের সামনে সুযোগ এসে যায় জাতীয় দলের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার। যদিও দলে নতুন মুখ তেমন একটা নেই। ওয়ান ডে স্কোয়াডে একমাত্র নবাগত ক্রিকেটার হলেন ব্যাটসম্যান মিনোদ ভানুকা। ওয়ান ডে’র পাশাপাশি টি-২০ স্কোয়াডেও জায়গা পেয়েছেন তিনি। টি-২০’তে আরও একজন নতুন ক্রিকেটারকে দলে নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। তিনি হলেন ভানুকা রাজাপক্ষে।

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে ওয়ান ডে সিরিজে বাদ পড়া দানুস্কা গুনতিলকে ও লক্ষণ সান্দাকান পুনরায় জাতীয় দলে ফিরেছেন। ওয়ান ডে’র পাশাপাশি টি-২০ দলেও রাখা হয়েছে দু’জনকে।

করুনারত্নে ও মালিঙ্গা দুজনেই না থাকায় এবং মেন্ডিস, চাঁদিমলের মতো সিনিয়র ক্রিকেটাররা নিজেদের সরিয়ে নেওয়ায় ওয়ান ডে ও টি-২৯ দলের জন্য নতুন অধিনায়ক বেছে নিতে হয় শ্রীলঙ্কাকে। একদিনের সিরিজে শ্রীলঙ্কার নেতা নির্বাচিত হয়েছেন লাহিরু থিরিমানে। টি-২০ সিরিজে দ্বীপরাষ্ট্রকে নেতৃত্ব দেবেন দাসুন শানাকা।

উল্লেখ্য, ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত সময়ে পাকিস্তানের মাটিতে ৩টি ওয়ান ডে ও ৩টি টি-২০ ম্যাচের দু’টি দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ খেলবে শ্রীলঙ্কা। পরে আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অন্তর্গত টেস্ট সিরিজ খেলতেও পাকিস্তানে উড়ে যাওয়ার কথা দ্বীপরাষ্ট্রের।

পাক সফরের দল নির্বাচনের আগে শ্রীলঙ্কান বোর্ডের নিরাপত্তা আধিকারিকরা ক্রিকেটারদের সঙ্গে বৈঠক মিলিত হন এবং পাকিস্তানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে খুঁটিনাটি বিবরণ দেন। পাশাপাশি ক্রিকেটারদের ইচ্ছাকে মর্যাদা দেওয়ার কথাও বলা হয়। অর্থাৎ পাকিস্তানের নিরাপত্তার আশ্বাস সত্ত্বেও ক্রিকেটাররা চাইলে ওদেশে খেলতে যেতে নাও পারেন, এমন বিকল্প রাখা হয় মালিঙ্গাদের সামনে। বেশিরভাগ ক্রিকেটার সিরিজ থেকে দূরে সরে থাকার বিকল্পটাকেই বেছে নেওয়া শ্রেয় মনে করেন।

ওয়ান ডে ক্যাপ্টেন দিমুথ করুনারত্নে ও টি-২০ অধিনায়ক মালিঙ্গা স্পষ্টই জানিয়েছিলেন তাঁরা পাকিস্তানে খেলতে যাবেন না। অভিজ্ঞ অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজও নিজেকে সরিয়ে নেন পাক সফর থেকে। এছাড়া নিরাপত্তাজনিত কারণে পাকিস্তানে খেলতে যেতে রাজি হননি নিরোশন ডিকওয়েলা, কুশল পেরেরা, ধনঞ্জয়া ডি’সিলভা, থিসারা পেরেরা, আকিলা ধনঞ্জয়া, সুরঙ্গা লকমল ও দিনেশ চাঁদিমল। কুশল মেন্ডিস চোটের জন্য নির্বাচকদের বিবেচনায় ছিলেন না।

পাকিস্তান সফরের জন্য শ্রীলঙ্কার ওয়ান ডে স্কোয়াড: লাহিরু থিরিমানে (ক্যাপ্টেন), দানুস্কা গুনতিলকে, সাদিরা সমরাবিক্রমা, আবিস্কা ফার্নান্ডো, ওশাদা ফার্নান্ডো, শেহান জয়সূর্য্য, অ্যাঞ্জেলো পেরেরা, দাসুন শানাকা, মিনোদ ভানুকা, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা, লক্ষণ সান্দাকান, নুয়ান প্রদীপ, ইসুরু উদানা, কাসুন রজিথা ও লাহিরু কুমারা।

টি-২০ স্কোয়াড: দাসুন শানাকা (ক্যাপ্টেন), দানুস্কা গুনতিলকে, সাদিরা সমরাবিক্রমা, আবিস্কা ফার্নান্ডো, ওশাদা ফার্নান্ডো, শেহান জয়সূর্য্য, অ্যাঞ্জেলো পেরেরা, ভানুকা রাজাপক্ষে, মিনোদ ভানুকা, লাহিরু মদুশঙ্কা, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা, লক্ষণ সান্দাকান, ইসুরু উদানা, নুয়ান প্রদীপ, কাসুন রাজিথা ও লাহিরু কুমারা।