নয়াদিল্লি: সংঘাত পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার আগে চিনের সেনাবাহিনী, যে অবস্থানে ছিল ফের সেই অবস্থানে ফিরে যেতে বলেছে ভারত। আর ভারতকে রাস্তা নির্মাণ বন্ধ করতে বলল চিন।

শনিবার দুই দেশের লেফট্যানেন্ট জেনারেল স্তরের বৈঠক ছিল। আর সেই বৈঠকেই ভারতকে রাস্তা নির্মাণ বন্ধ করার কথা বলেছেন চিনের আর্মি অফিসার।

এদিন প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে বৈঠক হয় দুই সেনা অফিসারের। গত প্রায় এক মাস ধরে লাদাখে যে সেনা সংঘাতের পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তার সমাধান করতেই এই বৈঠক হয় এদিন। সূত্রের খবর, চিনকে গালোয়ান ভ্যালিতে সেনার অগ্রগতি থামাতে বলেছে ভারত।

চিনের পক্ষ থেকে ছিলেন মেজর জেনারেল লিউ লিন। চিন সেনার সাউথ জিনজিয়াং রিজিয়নের কমান্ডার তিনি। তিনিই রাস্তা নির্মাণের কাজ বন্ধ করার দাবি জানিয়েছেন। সূত্রের খবর, ভারত স্পষ্ট বলেছে যাতে চিন তার সেনাবাহিনীকে পিছিয়ে পুরনো অবস্থানে নিয়ে যায়।

ভারত চিনকে স্পষ্ট জানিয়েছে যে, রাস্তা নির্মাণের কাজ লাইন অফ অ্যাকাচুয়াল কন্ট্রোলের এপারে অধফাৎ ভারতের দিকেই হচ্ছে, তাই তা বন্ধ করার কোনও প্রশ্নই নেই।

বৈঠকের পর, কী কথা হল তা জানানো হবে ভারতের সেনা প্রধান নারাভানেকে।

ভারতই নাকি সীমান্তে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে। অবিলম্বে ভারতকে এই ধরনের ব্যবহার বন্ধ করার বার্তাও দিয়েছে চিন।

চিনের এক সংবাদমাধ্যমে লেখা হয়েছে, ‘ভারতের উচিৎ অবিলম্পে উত্তেজক কার্যকলাপ বন্ধ করা।’ নাহলে এই সমস্যা কোনোদিনই সমাধান হবে না বলে উল্লেখ করা হয়েছে। কূটনীতির মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করার কথা বলেছেন চিনা বিশেষজ্ঞরা।

ওই ট্যাবলয়েটে আরও লেখা হয়েছে যে, গত মে মাস থেকে ভারত সীমান্ত অতিক্রম করে গালোয়ান ভ্যালিতে চিনের দিকে প্রবেশ করছিল। চিনা সেনাবাহিনীর স্বাভাবিক কার্যকলাপে বাধা দেওয়া হচ্ছিল বলেও অভিযোগ করা হয়েছেএ।

ভারতীয় সেনা সূত্রে খবর, সেনা সূত্রে খবর, লাদাখ সীমান্তে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার ওপারে চিন যুদ্ধাস্ত্র মজুত করছে। দিনে-দিনে সেইসব সমরাস্ত্রের বহর বাড়ানো হচ্ছে। একইসঙ্গে সীমান্তে সেনা গতিবিধিও লক্ষ্যণীয়ভাবে বাড়াচ্ছে বেজিং। চিনা গতিবিধি তৎপর হতেই পাল্টা ব্যবস্থা নিয়েছে ভারতও।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV