শিলং: শিরোনামে আবার উঠে এল দু’টি শব্দ ‘নৈতিক জয়’। দিন কয়েক আগে যা শোনা গিয়েছিল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে। এবার সেই একই কথা বললেন তাঁর দলেরই প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষ।

সারদা কাণ্ডে মেঘালয়ের রাজধানী শহর শিলং-এ গত তিন দিন ধরে কলকাতার নগরপাল রাজীব কুমারকে জেরা করছে সিবিআই। গত কাল থেকে সেই জেরায় সঙ্গ দিচ্ছেন কুণাল ঘোষ। রাজীব কুমার রাজ্য সরকার গঠিত সিট-এর প্রধান হিসেবে তদন্ত করেছেন। অন্যদিকে কুণালবাবু ওই কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত এবং জেলেও ছিলেন বেশ কয়েক বছর।

এই দুই ব্যক্তিকে গত দুই দিন ধরে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করছে সিবিআই আধিকারিকেরা। সোমবার সিবিআই দফতর থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন কুণাল। ঠিক কী নিয়ে প্রশ্ন করা হচ্ছে বা কোন বিষয়টিকে সিবিআই গুরুত্ব দিচ্ছে সেই বিষয়ে তিনি সংবাদ মাধ্যমের সামনে মুখ খোলেনি।

এদিন কুণাল জানান যে তদন্তে সহযোগিতা করতে তাঁকে শিলং-এ ডাকা হয়েছিল এবং তিনি তা করছেন। কুণালবাবুর কথায়, “সিবিআইকে সারদা তদন্তে যাবতীয় সাহায্য করব এই শরতে আমি জামিন পেয়েছি এবং সর্বদা শর্ত মেনেই চলেছি।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেন, “তদন্তের স্বার্থে আমায় যা যা জিজ্ঞাসা করা হয়েছে সব উত্তর আমি দিয়েছি। তবে ঠিক কী কথা হয়েছে তা বলা যাবে না। তদন্তের বিষয়ে মন্তব্য করা আমার কাজ না।”

আরও পড়ুন- শিলংয়েই সারদার শেষের কবিতা লিখছে সিবিআই

এরপরেই তিনি ছোট্ট কথায় কটাক্ষ করেন নগরপাল রাজীব কুমারকে। সারদা তদন্ত এবং তাঁর গ্রেফতারি নিয়ে রাজীব কুমার এবং অর্নব ঘোষের বিরুদ্ধে কুণাল ঘোষের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। যা বিভিন্ন সময়ে উঠে এসেছে তাঁর বক্তব্যে এবং লেখায়।

এদি সেই বিষয়টি ফের উঠে আসে রাজ্যসভার প্রাক্তন সাংসদের বক্তব্যে। কুণাল ঘোষ বলেছেন, “আমি দীর্ঘ দিন ধরে রাজীব কুমারকে জেরার কথা বলে আসছি। আমার দাবি মেনে রাজীব কুমারকে অবশেষে আমার সামনাসামনি হতেই হল এবং আমার যাবতীয় অভিযোগ তাঁকে শুনতে হল। এটা আমার নৈতিক জয় বলে আমি মনে করছি।”

সিবিআই দফতর থেকে বেরিয়ে এদিন বেশ খোশ মেজাজে দেখা গিয়েছে কুণাল ঘোষকে। বেশ হাসি মুখেই তিনি সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলেছেন। আগামী কাল তিনি কলকাতায় ফিরছেন বলেও জানিয়েছেন কুণাল। এই মুহূর্তে যে তিনি অনেক স্বছন্দ্য তা তাঁর শরীরি ভাষায় বেশ ভালোভাবে ফুটে উঠছিল।