স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: শুক্রবার অভিযোগ করেছিলেন৷ শনিবার নিজেই পৌঁছে গেলেন সাগর দত্ত হাসপাতালে৷ বর্তমানে হাসপাতাল সুপারের থেকে জানতে চাইলেন কেন সেই সময় এমপি ল্যাডের বরাদ্দ অর্থ ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল৷ তৃণমূলের রাজ্যসভার প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষের অভিযোগ, ‘‘রাজনীতি করেছেন হাসপাতালের তৎকালীন সুপার৷ রোগী কল্যাণ সমিতির প্রধান হয়েও নীরব ছিলেন মন্ত্রী মদন মিত্র৷’’ তৎকালীন সুপারকে তাঁকে অবিলম্বে বরখাস্ত করা দাবি তুললেন তিনি৷

উত্তর ২৪ পরগণা জেলার কামারহাটির সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজে বৃহস্পতিবার প্রাণ হারিয়েছেন তিন দিনের শিশু। চিকিৎসকদের কর্মবিরতির কারণেই বিনা চিকিৎসায় ওই শিশুর প্রাণ গিয়েছে বলে উঠেছে অভিযোগ।

আরও পড়ুন: প্রতিশ্রুতি রাখতে সিঙ্গুরে ফের টাটাকে ফেরানোর উদ্যোগ শুরু লকেটের

জুনিয়র ডাক্তারদের কর্মবিরতির জেরে ওই শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে মানতে নারাজ প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ কুণাল ঘোষ। এর পিছনে তৃণমূল কংগ্রেসের সস্তার রাজনীতি রয়েছে বলে দাবি করেছেন সংসদের উচ্চকক্ষের এই প্রাক্তন সদস্য।

তিন দিনের ওই শিশুর মৃত্যু নিয়ে প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষের প্রশ্ন, সাগর দত্ত একটা মেডিক্যাল হাসপাতাল হওয়া সত্ত্বেও শিশুটিকে অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার দরকার পড়ল কেন? এই প্রশ্ন জবাবও দিয়েছেন তিনি, “কারণ সাগর দত্তে পেডিয়াট্রিক বিশেষ ভেনটিলেটর নেই। কেন নেই? কারণ কেনা হয় নি।”

এরপরেই সাগর দত্ত হাসপাতাল সম্পর্কে নিজের খেদ ব্যক্ত করেছেন প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষ। তিনি বলেন, “এই সাগর দত্ত হাসপাতালের পরিকাঠামোগত উন্নয়নে আমি আমার সাংসদ তহবিল থেকে ৫০ লক্ষ টাকা দিয়েছিলাম। ঠিকঠাক কাজ করলে আরও দিতাম। যেমন আরও একাধিক প্রতিষ্ঠানে দিয়েছি। অনেক লড়াই, হাইকোর্টের যুদ্ধ শেষে টাকাটা অনুমোদিত হয়ে আসে।”

তাঁর সযোজন, “অথচ তারপর সাগর দত্ত হাসপাতাল জানায় তাদের সব আছে। আমার বরাদ্দ টাকা লাগবে না। লিখিতভাবে তাদের আধিকারিক এটা নোডাল এজেন্সি কলকাতা পুরসভাকে জানিয়ে টাকা ফেরতের ব্যবস্থা করে দেন। আমি বিস্মিত, একটা হাসপাতাল কী করে টাকা ফেরাতে পারে!”

কুণালের দাবি, “আমি দলের গুড বুকে ছিলাম না বলে হাসপাতালে সস্তা রাজনীতি হয়েছে। উন্নয়ন উপেক্ষা করে দলবাজির হয়েছে।” একই সঙ্গে আক্ষেপের সুরে তিনি জানান, “সেদিন সেই টাকায় যদি এই ধরণের যন্ত্র কেনা যেত, তাহলে হয়ত শিশুটি মারা যেত না।’’

আরও পড়ুন: কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাত: মমতাকে ছাড়াই নীতি আয়োগের বৈঠকে মোদী

শিশু মৃত্যুর ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে কাঠগড়ায় তুলেছেন সাংসদ কুণাল ঘোষ। কারণ তাঁর সাংসদ তহবিলের টাকা ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। সেই সময় সাগর দত্ত মেডিক্যালের রোগী কল্যাণ সমিতির প্রধান ছিলেন মদন মিত্র৷ বর্তমানে ওই পদে রয়েছেন রাজ্যের মন্ত্রী ও তৃণমূল বিধায়ক তাপস রায়৷ এই বিষয়ে তাদের সঙ্গেও কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন রাজ্যের শাসক দলের প্রাক্তন সাংসদ৷

কুণাল ঘোষের মতে, অর্থের প্রয়োজন থাকলে সিদ্ধান্ত পুর্নবিবেচনা করে হাসপাতাল কর্তপক্ষ যেন নোডাল এজেন্সিকে জানায়৷ তিনিও সম্পূর্ণ বিষয়টি জানাবেন ডিজি এমপি ল্যাডকে৷ হাইকোর্টে এখনও মামলাটি রয়েছে৷ কিভাবে ফের ওই রি-ফান্ডেবেল অর্থ মিলতে পারে আইনী পক্রিয়ায় তা চেষ্টা করতে হবে৷ প্রাক্তন সাংসদের অভিযোগ, শিশু মৃত্যু নিয়ে চিকিৎসকদের ঘাড়ে দোষ দেওয়া হচ্ছে৷ কিন্তু, তার পিছনে রয়েছে সস্তার রাজনীতি৷ কুণাল ঘোষের নিশানায় তৃণমূল৷