রাজকোট: মহাত্মা’র শহরে হারের বদলা নিল কোহলি অ্যান্ড কোং৷ শুক্রবার সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ান ডে ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ৩৬ রানে হারিয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে সমতা ফেরাল ভারত৷ এই ম্যাচে ১০০ উইকেটের মাইলস্টোন টপকে যান কুলদীপ যাদব৷ এক ওভারের তাঁর জোড়া উইকেটই ভারতে ম্যাচে ফেরায়৷

ভারতের দ্রুততম স্পিনার হিসেবে ওয়ান ডে ক্রিকেটে ১০০ উইকেটের মাইলস্টোনে পৌঁছন কুলদীপ৷ টপকে যান হরভজন সিংয়ের রেকর্ড৷ মাত্র ৫৮টি ম্যাচে একশো উইকেটের মাইলস্টোনে পৌঁছন ভারত৷ আর ওয়ান ডে ক্রিকেটে একশো উইকেটের মাইলস্টোন টপকাতে ৭৬টি ম্যাচে এই মাইলস্টোনে পৌঁছে ছিলেন ভাজ্জি৷ ২০০৩ সালে এই রেকর্ড গড়েছিলেন ভারত৷

তবে ভারতের দ্রুততম বোলার হিসেবে ওয়ান ডে ক্রিকেটে একশো উইকেটের মাইল স্টোন ছুঁয়েছেন টিম ইন্ডিয়ার দুই পেসার মহম্মদ শামি ও জসপ্রীত বুমরাহ৷ শামি ৬৭টি এবং বুমরাহ ৫৭টি ম্যাচ খেলেছেন৷ এদিন অস্ট্রেলিয়া ইনিংসের ৩৮তম ওভারে জোড়া উইকেট নিয়ে ভারতকে ম্যাচ ফেরান কুলদীপ৷ সেই সঙ্গে নিজে মাইলস্টোনে পৌঁছন৷ ওভারের দ্বিতীয় ডেলিভারিতে অজি উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স ক্যারিকে আউট করে ওয়ান ডে ক্রিকেটে ১০০ উইকেটের মাইলস্টোনে পৌঁছন ভারতীয় চায়নাম্যান বোলার৷ তার পর ওভারের পঞ্চম ডেলিভারিতে স্টিভ স্মিথের উইকেট তুলে নেন কুলদীপ৷ ব্যক্তিগত ৯৮ রানের কুলদীপের বলে প্লেড-অন হন স্মিথ৷

কুলদীপ ভারতের মধ্যে দ্রুততম স্পিনার হলেও বিশ্বের দ্রুততম বোলার হিসেবে ওয়ান ডে ক্রিকেটে ১০০ উইকেটের মাইলস্টোনে পৌঁছনোর রেকর্ড রয়েছে আফগান স্পিনার রশিদ খানের৷ মাত্র ৪৪টি ম্যাচে মাইলস্টোন ছুঁয়ে রেকর্ড গড়েছেন রশিদ৷ তারপর অস্ট্রেলিয়ার পেসার মিচেল স্টার্ক ৫২টি ম্যাচে ১০০টি উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে৷ তিন নম্বরে রয়েছেন পাকিস্তানের কিংবদন্তি অফ-স্পিনার সাকলাইন মু্স্তাক৷ তিনি এই মাইলস্টোনে পৌঁছেছিলেন ৫৩টি ম্যাচে৷

এদিন ৩৪১ রান তাড়া করতে নেমে ৩০৪ রানে গুটিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া৷ শুরুতেই মনীশ পাণ্ডের বিশ্বমানের ক্যাচে ডেভিড ওয়ার্নারের ড্রেসিংরুমে ফেরার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তি অ্যাডিনালিন পান ভারতীয় ক্রিকেটাররা৷ কারণ প্রথম ম্যাচে দুই ওপেনারের অপরাজিত সেঞ্চুরির দাপটে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে লজ্জার হার হমজ করেছিল ভারত৷ কিন্তু এদিন তা হতে দেয়নি ভারতীয় বোলাররা৷ ২০ রানেই অস্ট্রলিয়ার ওপেনিং জুটি ভেঙে দেন মহম্মদ শামি৷

রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই ওয়ার্নারের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় অস্ট্রেলিয়া৷ ইনিংসের চতুর্থ ওভারে মহম্মদ শামির দ্বিতীয় ডেলিভারি স্কোয়ার কার্ট করতে গিয়ে মনীশের হাতে ধরা পড়েন ওয়ার্নার৷ ধারাভাষ্যকাররা লাফিয়ে মনীশের এক হাতে ক্যাচকে বিশ্বমানের বলে ব্যাখ্যা করেন৷ ব্যক্তিগত ১৫ রানে ড্রেসিংরুমে ফেরেন ওয়ার্নার৷

এর আগে প্রথম ব্যাটিং করে ৬ উইকেটে ৩৪০ রান তোলে ভারত৷ ধাওয়ান ৯৬, রাহুল ৮০ এবং কোহলি ৭৮ রান করেন৷ রোহিত ও ধাওয়ান ওপেনিং জুটিতে ৮১ রান যোগ করার পর দ্বিতীয় উইকেটে ক্যাপ্টেন কোহলির সঙ্গে সেঞ্চুরি (১০৩) পার্টনারশিপ গড়ে ভারতীয় ইনিংসকে মজবুত ভিতের উপর দাঁড় করিয়ে দেন ধাওয়ান৷ রোহিত শর্মা ৪২ রান করেন৷