হাসপাতালে আসছেন উর্ধতন আধিকারিকরা! তাঁদের জন্যে কিছু তো বিশেষ ব্যবস্থা তো রাখতে হবে! আর তা করতে গিয়ে বিপদ ঘটিয়ে ফেললেন দক্ষিণ কোরিয়ার একটি হাসপাতালের কর্মীরা। যাদের দায়িত্ব রোগীদের সেবা করা তাঁদের দিয়ে করানো হল ‘সেক্সি ডান্স’। ইতিমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল সেই ভিডিও। কীভাবে এই ঘটনা ঘটল তা জানতে ইতিমধ্যে তদন্ত কমিশন বসিয়েছে সেই দেশের প্রশাসন। একই সঙ্গে হাসপাতালের বিরুদ্ধেও চলছে তদন্ত।

সম্প্রতি একটি সংস্থার অনুষ্ঠানে আয়োজন করা হয়েছিল হাসপাতালের বিরুদ্ধে। সেখানে হাসপাতালের সঙ্গে যুক্ত একাধিক গন্যমান্য ব্যক্তিত্বের উপস্থিত থাকার কথা ছিল। সেই মতো তাঁরা অনুষ্ঠানে যোগও দেন। অনুষ্ঠানও শুরু হয় নির্ধারিত সময়ে। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই শুরু হয় বিপত্তি। শুরু হয় সেক্সি ডান্স। তাও আবার কিনা হাসপাতালে কর্মরত নার্সদের দিয়ে এই অশ্লীল নাচ করানো হয়। এতটাই অশ্লীল ছিল সেই নাচ তা দেখে সোশ্যাল মিডিয়াতে এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ করে। কেউ আবার নাচের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতেও দিয়ে দেয়। অবস্থা এমন দিকে পৌঁছয় যে ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিতে বাধ্য হয় স্থানীয় প্রশাসন।

দেখুন সেই ভিডিও-

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।