স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : সকালে ঝলমলে আকাশ, বিকালে বৃষ্টি। বুধবার কেন এই বৃষ্টি হল, সেই ব্যাখ্যাই দিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

বুধবার বিকালে আকাশ কালো করে বৃষ্টি নামে। ঘন্টা খানেক ঝড় বৃষ্টি হয়। বেশ কিছু জায়গায় বজ্র বিদ্যুৎ সহ ঝড়-বৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে দক্ষিণ কলকাতা, সল্টলেক, হাওড়া, পূর্ব মেদিনীপুরের দিকে ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে। জানা গিয়েছে, স্থানীয়ভাবে তৈরি হওয়া মেঘের কারণেই এই বৃষ্টিপাত।

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা গণেশ কুমার দাস জানান, দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু বিদায় নিয়েছে। অর্থাৎ খাতায়-কলমে বর্ষা নেই। তবে এই সময় উত্তর-পূর্ব দিক থেকে একটি হাওয়া বইতে শুরু করে। সেটা এখন আপার লেবেলে রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। ফলে অন্ধ্রপ্রদেশ ও সংলগ্ন এলাকায় বৃষ্টিপাত হচ্ছে। তার প্রভাব ঝাড়খন্ড পশ্চিমবঙ্গের কিছু এলাকায় পড়েছে। তার জন্যেই আগামী দু’দিন মেঘলা আকাশ থাকবে। এবং হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হবে। বিশেষ করে দক্ষিণ কলকাতা, হাওড়া, দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও দুই মেদিনীপুরে। তবে সাইক্লোন হওয়ার মতন কোনও পূর্বাভাস এই মুহূর্তে নেই।

উল্লেখ্য আবহাওয়া দফতর এর আগে জানায়, ১৫ অক্টোবরের মধ্যেই রাজ্য থেকে পাকাপাকি ভাবে বিদায় নিতে পারে বৃষ্টি। এই মুহূর্তে রাজ্যের কিছু জেলা থেকে সরে গিয়েছে মৌসুমী বায়ু। ফলে সেই জেলাগুলিতে কমে গিয়েছে বৃষ্টির পরিমাণ। যে সব এলাকায় বৃষ্টির পরিমাণ কমে গিয়েছে, সেখানে রাতের দিকে উষ্ণতার পারদও বেশ কিছুটা কমেছে। এই মুহূর্তে বৃষ্টি অবস্থান করছে, বাঁকুড়া ও জামশেদপুরের ওপরে। আবহাওয়াবিদদের মতে, এই সব এলাকা থেকে বৃষ্টি সরতে সময় লাগবে আরও তিন চার দিন।

অন্যদিকে, আশ্বিনের শেষ আর দুদিন পরেই কার্তিক মাস পড়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে ঠান্ডা হাওয়া শরীরে লাগতে শুরু করেছে। সন্ধে নামার সঙ্গে সঙ্গেই বেশ শীত শীত লাগছে। রাত বাড়লেই ঠাণ্ডাভাব খানিক বাড়ছে। গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৩.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৪.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস,যা স্বাভাবিক। তবে বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়নি। কিন্তু আগামী ২৪ ঘন্টায় বৃষ্টি হতে পারে বলে জানাচ্ছে আলিপুর হাওয়া অফিস।